Learn and know the history of Bengal 1. #Gandhi_why_nokhali came ??

3년 전

FB_IMG_1533059231061.jpg
Learn and know the history of Bengal 1.

#Gandhi_why_nokhali came ??
#why_which_which_which
Everyone was requested to read, writing a lot of information.
.
No matter how bad the people of Noakhali are
Many examples are meant to illustrate
'Noakhali people are Gandhi,' Gandhi said
The goats were stolen ' That's one
Arbachin was suddenly seen.
The story of Gandhi's goat's theft in very thoughtful way
Coming together. I humble him
I asked, why is Gandhi, noakhali?
Went to
.
He was a little embarrassed.
I told him Noakhali
At that time, like Cox's Bazar
Was there. Your Mahatma Gandhi in Noakhali
The breeze came to eat. At that time
Noakhaliya stole his goats
Something like that He did not say anything else.
.
Whatever Mahatma Gandhi is called
His name is Mohandas Karamchand Gandhi.
Many of them possess a great spirit
Because he thinks he is a Mahatma
Have lived. Bend him to me
I think it is because of the soul
Never call him Mahatma.
Whatever he will talk about.
Why did he go to Noakhali?
Why did he lose the goat?
These issues will come in contextually.
Before that we have another one
Look at the subject.
.
One in 1946 in Noakhali
Riot was held. Horrific riots.
This is in Noakhali Riot /
Known as riot. This is in English
Many articles on search by searching
Find out. Can get bangla also.
Good article on wiki
There are about this. if you
They read them but you are one
Gain a history of the form
Where it is said to the Hindus
About the terrible torture
.
But at present there are many people in Noakhali
Do not know about the riots. Do not know
Because this is the history of someone writing about
Did not need As it is here the Hindus
The losses are so much that they are
It has been researched. Riots
A few days later, Noakhali Pakistan
Being Muslim, Muslims in this region
Become victorious.
.
The beginning of the riots in Noakhali
Not in Noakhali Muslim League
Led by Muslims demand Pakistan
And on the other hand, Congress is on the other hand
Leadership Hindus are for single India
Demanding. This is Hindu Muslim
Like the riot in Calcutta That's it
Formula begins with Bihar. In Calcutta
Hindus and Muslims were equally equal
The situation is so vulnerable that the situation is so vulnerable
Did not read But Muslims in Bihar
The situation was very cruel.
.
Now how is it from Arakan
Rohingyas got drowned At that time
From Bihar to Noakhali
Got down Though noakhali
Absolutely Muslim was not inhabited,
However, due to different reasons in Noakhali
Biharis came One of them
Because noakhali Muslims are the other
The Muslims were not unaware of it.
They were politically
Highly aware. The reason for this is here
Wahabi Movement and Haji
Shariat Ullah's Faraizi Movement
It was very strong.
.
Biharis came to Noakhali
Another reason was the slave
Sarwar Husaini His house is present
Rampur Police Station in Shampur of Lakshmipur district.
He was the Pir's family.
They are descendants of the genealogists of Muslims
Leadership is coming.
He persecuted Biharis
Called in Noakhali.
Their safety and security for this
To arrange accommodation
Force created. It's Mia
Was known as Fauj.
.
Golam Sarwar Husaini Political
The guy was there. He was born in 1937
Nomination of farmer praja party in the election
Elected by the Bengal Legislative Council
Become a member. In the elections of 1946
He was defeated by the Muslim League candidate.
.
However, Golam Sarwar Sahib
As well as giving shelter to Biharis
In Bihar and Calcutta, political efforts were made to stop the riots.
But he did not respond to his efforts
Congress and Muslim League. He is everyone
Write letters and arbitrary people
Want to solve the murder. Someone to solve
Did not play a strong role.
He was very disappointed.
.
Meanwhile, the Hindu zamindar of Raipur
Chittaranjan Roy Chowdhury in Noakhali
Biharis like this infiltration
Was not doing He also accompanied Bihari
To prevent the arrival of Muslims
Prepared. Chittaranjan Roy
This behavior of Chowdhury Sarwar
Pained him
He tried to convince him.
But zamindar refuses to accept it.
Zamindar was associated with the Congress.
Sarowar Saheb is so news to Gandhi
He said that he landed the zamindar
Preventing from his cruel behavior.
Gandhi did not care for his call.
Meanwhile zamindar from Noakhali
Eviction of all the exotic Muslims
Rushed to the expedition
.
No one from Sarwar Husaini
Finally he did not get help
Diaara Sharif of Astana in Astana
One of his fans and Muslims
Call the rally. There he is
Regarding the current status of Muslims
Said and the verdict of Chittaranjan
To fight against Chowdhury
Call.
.
All Muslims respond to his call.
Muslim people blocking Chittaranjan
He is British police, firearms, his fate
Army, Hindu militants, Congress workers and
The Muslims also on the day of water,
Could not stop. Finally she is her
Killing family members and
The suicide itself. Sarwar Sahib
Help him in this campaign
Kashem a Muslim League leader.
The name of Sarwar's army is Mia's
The name of the army and the army of Kashem was named
Kashem Fauj.
.
After the fall of the zamindar, they are full
In Noakhali several parts were divided
Hindus descended to eviction. One week
The flow of events in between changed.
This time the Hindu refugees started
Noakhali Tuck the knot
Mohandas Karamchand Gandhi He is Muslim
Start the contact with the leaders
To stop Sarwar Hussein.
But no Muslim leader's even even
AK Fazlul, chief of his party, Barisal AK Fazlul
Sarowar Saheb did not listen to Huq.
Because no one has ever helped him.
.
To stop him, Gandhi himself came to Noakhali. Noakhali
Congress rally in Choumuhani
Speaking. Already Sarowar Husaini
He has announced that he is from the whole of Bengal
Hindus evicted. If Gandhi wants to come to Sarwar, he will first refuse. Please agree later.
.
Wherever Gandhi goes, he takes a goat. He drinks the goat's milk. As soon as Sarwar reached his dormitory, his people took his goats, Mian Fouge's men. When he was talking to Sarwar, cooked goats were presented in front of Gandhi. It was a thread of Sarwar Sahib. Gandhi is able to guess # Sarwar's behavior, what is #Nowakhailara!
.
Sarwar told Gandhi that you came to the wrong place. The onset of the riots is not here. You have requested to take action in Bihar and Calcutta. You came in Noakhali. On the day that clashes in Calcutta and Bihar will be closed, noakhali will be cold. Gandhi requested that during this period, so that the Hindu eviction was stopped in Noakhali. Sarwar said that you will give me this assurance that as soon as I stop I will stop in Bihar and Calcutta?
.
Gandhi failed to give assurances. Sarwar Hussaini said, then you do not have the ability to request me. I'm not ready to give you security. I did not call you in Noakhali. Gandhi started working on the threat of Sarwar. The riots were closed in the whole of India within three days. It was clear to Sarwar that all the key was in the hands of Gandhi. They are putting riots and killing Muslims.
.
When the riots broke, Gandhi asked for security in Noakhali and asked for permission to do the monastery for the welfare of Hindus. Sarwar arranged for his protection and gave permission for Hindu monastery in Sonaimuri of Noakhali. The monastery was established in place of Hemant, the Hindu leader of that region

বাংলার ১অজানা ইতিহাস জানুন ও পড়ুন।

#গান্ধীকেননোয়াখালী এসেছিলেন??
#কেনইবাছাগলহারিয়েছেন??
সবাইকে পড়ার অনুরোধ রইলো, অনেক তথ্য বহুল লিখা।
.
নোয়াখালীর মানুষ কত খারাপ সেটা
বুঝানোর জন্য উদাহরণ হিসেবে অনেকেই
বলে থাকেন ‘নোয়াখালীর মানুষ গান্ধীর
ছাগল চুরি করেছিলো’। সেরকমই এক
অর্বাচীনের সাথে হঠাৎ দেখা হলো।
খুব ভাব নিয়ে গান্ধীর ছাগল চুরির বর্ণনা
দিয়ে আসছেন। আমি তাকে বিনীতভাবে
জিজ্ঞাসা করলাম, গান্ধী কেন নোয়াখালী
গিয়েছিলেন?
.
তিনি একটু অপ্রস্তুত হয়ে পড়লেন।
আমি তাকে বললাম নোয়াখালী মনে হয়
সেসময় এখনকার কক্সবাজারের মতো
ছিল। আপনার মহাত্মা গান্ধী নোয়াখালীতে
হাওয়া খেতে এসেছিলেন। সেসময়
নোয়াখাইল্যারা তার ছাগল চুরি করেছিলো।
এমন কিছু? তিনি আর কিছু বললেন না।
.
যাই হোক মহাত্মা গান্ধী যাকে বলা হয়
তার নাম মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী।
তাকে অনেকে মহান আত্মার অধিকারী
মনে করেন বিধায় তাকে মহাত্মা বলে
থাকেন। আমার কাছে তাকে নিচু
আত্মার বলেই মনে হয় বলে আমি
কখনোই তাকে মহাত্মা বলি না।
সে যাই হোক তার কথা পরে হবে।
কেন সে নোয়াখালী গিয়েছিল?
কেনইবা তাকে ছাগল হারাতে হয়েছিল?
এসব বিষয় প্রাসঙ্গিকভাবে আসবে।
তার আগে আমরা অন্য একটা
বিষয়ে দৃষ্টিপাত করি।
.
নোয়াখালীতে ১৯৪৬ সালে একটি
দাঙ্গা অনুষ্ঠিত হয়। ভয়াবহ দাঙ্গা।
এটি ইতিহাসে নোয়াখালী রায়ট/
দাঙ্গা নামে পরিচিত। ইংলিশে এই
লিখে সার্চ করলে অনেক আর্টিকেল
পাবেন। বাংলায়ও পেতে পারেন।
উইকিতেও বেশ ভালো আর্টিকেল
আছে এই নিয়ে। আপনি যদি
সেগুলো পড়েন তবে আপনি এক
তরফা একটি ইতিহাস পাবেন
যেখানে বলা হয়েছে হিন্দুদের প্রতি
ভয়াবহ নির্যাতনের কথা।
.
অথচ বর্তমানে নোয়াখালীর অনেকেই
সেই দাঙ্গার কথা জানেন না। না জানার
কারণ এই ইতিহাস নিয়ে কারো লিখার
দরকার হয়নি। যেহেতু এখানে হিন্দুদের
ক্ষয়ক্ষতি বেশি হয়েছে তাই তারাই
এটা নিয়ে গবেষণা করেছে। দাঙ্গার
কিছুদিন পরেই নোয়াখালী পাকিস্তানের
অন্তর্গত হওয়ায় মুসলিমরা এই অঞ্চলে
জয়ী হয়ে যান।
.
নোয়াখালীতে দাঙ্গার সূত্রপাত
নোয়াখালীতে নয়। মুসলিম লীগের
নেতৃত্বে মুসলিমরা পাকিস্তান দাবী
করেছে আর অন্যদিকে কংগ্রেসের
নেতৃত্বে হিন্দুরা একক ভারতের জন্য
দাবী জানাচ্ছে। এই নিয়ে হিন্দু মুসলিম
দাঙ্গা লেগেছে কলকাতায়। তারই
সূত্র ধরে বিহারে শুরু হয়। কলকাতায়
হিন্দু-মুসলিম সমান সমান ছিলো
বলে পরিস্থিতি অতটা নাজুক হয়ে
পড়ে নি। তবে বিহারে মুসলিমদের
অবস্থা হচ্ছিলো অত্যন্ত করুণ।
.
এখন যেভাবে আরাকান থেকে
রোহিঙ্গাদের ঢল নেমেছে। সেসময়
বিহার হতে নোয়াখালীতে ঢল
নেমেছিলো। নোয়াখালী যদিও
একেবারে মুসলিম অধ্যুষিত ছিল না,
তবে নানান কারণে নোয়াখালীতে
বিহারীরা এসেছিলো। এর অন্যতম
কারণ নোয়াখালীর মুসলিমরা অন্য
মুসলিমদের মতো অসচেতন ছিল না।
তারা ছিলেন রাজনৈতিকভাবে
অত্যন্ত সচেতন। এর কারণ এখানে
ওহাবী আন্দোলন এবং হাজী
শরীয়ত উল্লাহর ফরায়েজী আন্দোলন
অত্যন্ত শক্তিশালী ছিল।
.
বিহারীরা নোয়াখালীতে আসার
আরেকটি কারণ ছিল গোলাম
সরোয়ার হুসেইনী। তাঁর বাড়ি বর্তমান
লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জ থানার শামপুরে।
তিনি ছিলেন পীর পরিবারের।
তারা বংশানুক্রমিকভাবে মুসলিমদের
নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন।
তিনি নির্যাতিত বিহারীদের
নোয়াখালীতে আহ্বান জানিয়েছেন।
এই লক্ষ্যে তাদের নিরাপত্তা ও
আবাসনের ব্যবস্থা করার জন্য একটি
বাহিনী তৈরি করেন। এটি মিয়ার
ফৌজ নামে পরিচিত ছিল।
.
গোলাম সরোয়ার হুসেইনী রাজনৈতিক
লোক ছিলেন। তিনি ১৯৩৭ সালের
নির্বাচনে কৃষক প্রজা পার্টির নমিনেশন
নিয়ে বঙ্গীয় আইন পরিষদের নির্বাচিত
সদস্য হন। ১৯৪৬ সালের নির্বাচনে
তিনি মুসলিম লীগের প্রার্থীর কাছে পরাজিত হন।
.
যাই হোক গোলাম সরোয়ার সাহেব
বিহারীদের আশ্রয় দিচ্ছিলেন পাশাপাশি
বিহারে ও কলকাতায় দাঙ্গা বন্ধ করার জন্য রাজনৈতিক প্রচেষ্টা চালাতে থাকেন।
কিন্তু তার সেই প্রচেষ্টায় সাড়া দেয়নি
কংগ্রেস এবং মুসলিম লীগ। তিনি সবার
কাছে চিঠি লিখেন এবং নির্বিচারে মানুষ
হত্যার সমাধান চান। কেউ সমাধানে
জোরালো ভূমিকা রাখেন নি।
তিনি খুবই হতাশ হয়েছিলেন।
.
এদিকে রায়পুরের হিন্দু জমিদার
চিত্তরঞ্জন রায় চৌধুরী নোয়াখালীতে
বিহারীদের এই অনুপ্রবেশ পছন্দ
করছিলেন না। তিনি বিহারীসহ
মুসলিমদের আগমন ঠেকানোর
প্রস্তুতি নিয়েছিলেন। চিত্তরঞ্জন রায়
চৌধুরীর এই আচরণ সরোয়ার
সাহেবকে ব্যাথিত করেছিলো।
তিনি তাকে বুঝানোর চেষ্টা করেন।
কিন্তু জমিদার তা মানতে নারাজ।
জমিদার কংগ্রেসের সাথে যুক্ত ছিলেন।
সরোয়ার সাহেব তাই গান্ধীকে খবর
জানালেন যাতে তিনি জমিদারকে
তার নিষ্ঠুর আচরণ থেকে বিরত রাখেন।
গান্ধী তার আহ্বানকে পাত্তা দিলেন না।
এদিকে জমিদার নোয়াখালী থেকে
সকল বহিরাগত মুসলিমকে উচ্ছেদের
অভিযানে নেমেছেন।
.
সরোয়ার হুসেইনী কারো থেকে কোন
সাহায্য না পেয়ে অবশেষে তিনি তার
আস্তানা সামপুরের দিয়ারা শরীফে
তার ভক্তদের ও মুসলিমদের এক
সমাবেশ ডাকলেন। সেখানে তিনি
মুসলিমদের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে
জানিয়েছেন এবং চিত্তরঞ্জনের রায়
চৌধুরীর বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য
আহ্বান জানান।
.
সকল মুসলিম তার আহবানে সাড়া দেয়।
চিত্তরঞ্জনকে অবরোধ করে মুসলিমরা।
সে বৃটিশ পুলিশ, আগ্নেয়াস্ত্র, তার পেয়াদা
বাহিনী, হিন্দু জঙ্গী, কংগ্রেস কর্মী ও
জলকামান দিয়েও সেদিন মুসলিমদের
আটকাতে পারেনি। অবশেষে সে তার
পরিবারের সদস্যদের হত্যা করে এবং
নিজে আত্মহত্যা করে। সরোয়ার সাহেবের
এই অভিযানে তাঁকে সহায়তা করেন
জনৈক মুসলিম লীগ নেতা কাশেম।
সরোয়ার সাহেবের বাহিনীর নাম মিয়ার
ফৌজ আর কাশেমের বাহিনীর নাম ছিল
কাশেম ফৌজ।
.
জমিদারের পতনের পর তারা পুরো
নোয়াখালীতে কয়েকটিভাগে ভাগ হয়ে
হিন্দু উচ্ছেদে নেমে পড়েন। এক সপ্তাহের
মধ্যে ঘটনা প্রবাহ পাল্টে যায়।
এবার হিন্দু শরনার্থীদের ঢল শুরু হয়
নোয়াখালী থেকে। এতক্ষণে টনক নড়ে
মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধীর। তিনি মুসলিম
নেতাদের সাথে যোগাযোগ শুরু করেন
সরোয়ার হুসেইনীকে থামানোর জন্য।
কিন্তু কোন মুসলিম নেতার কথা এমনকি
তার দলের প্রধান বরিশালের এ কে ফজলুল
হকের কথাও শুনেন নি সরোয়ার সাহেব।
কারণ এতদিন কেউ তাকে কোন সহায়তা করেনি।
.
অবশেষে তাকে থামানোর জন্য গান্ধী নিজেই এসেছিলেন নোয়াখালীতে। নোয়াখালীর
চৌমুহনীতে কংগ্রেসের উদ্যোগে সমাবেশে
বক্তব্য রাখেন। ইতিমধ্যে সরোয়ার হুসেইনী
ঘোষণা দিয়েছেন তিনি পুরো বাঙলা থেকে
হিন্দুদের উচ্ছেদ করবেন। গান্ধী এসে সরোয়ার সাহেবের সাথে সেখা করতে চাইলে প্রথমে তিনি অস্বীকৃতি জানান। পরে রাজি হন।
.
গান্ধী যেখানেই যান সেখানেই তিনি একটি ছাগল নিয়ে যান। তিনি সেই ছাগলের দুধ পান করেন। সরোয়ার সাহেবের আস্তানায় প্রবেশ করা মাত্রই তার ছাগল হস্তগত করেন মিয়া ফৌজের লোকেরা। যখন সারোয়ার সাহেবের সাথে তার কথা হচ্ছিলো তখনই রান্না করা ছাগল উপস্থাপন করা হয় গান্ধীর সামনে। এটা ছিল সরোয়ার সাহেবের একটি থ্রেট। গান্ধী #সরোয়ার সাহেবের এই আচরণেই আন্দাজ করতে সক্ষম হয় #নোয়াখাইল্লারা কী জিনিস!
.
সরোয়ার সাহেব গান্ধীকে বলেন, আপনি ভুল স্থানে এসেছেন। দাঙ্গার সূত্রপাত এখানে নয়। আপনাকে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করেছি বিহারে ও কলকাতায়। আপনি এসেছেন নোয়াখালীতে। যেদিন কলকাতায় ও বিহারে সংঘর্ষ বন্ধ হবে সেদিন নোয়াখালী ঠান্ডা হয়ে যাবে। গান্ধী অনুরোধ করেছেন তিনি চেষ্টা চালাবেন এই সময়ের মধ্যে নোয়াখালীতে যাতে হিন্দু উচ্ছেদ বন্ধ থাকে। সরোয়ার সাহেব বলেছেন আপনি কি আমাকে এই নিশ্চয়তা দিবেন আমি বন্ধ করার সাথে সাথে বিহারে ও কলাকাতায় বন্ধ হবে?
.
গান্ধী নিশ্চয়তা দিতে ব্যর্থ হয়েছিল। সরোয়ার হুসেইনী বললেন তাহলে আমাকে আপনি কোন অনুরোধ করার যোগ্যতা রাখেন না। আমি আপনার নিরাপত্তা দিতেও প্রস্তুত নই। আমি আপনাকে নোয়াখালীতে আহ্বান করিনি। সরোয়ার সাহেবের হুমকিতে গান্ধী কাজ শুরু করলেন। তিনদিনের মধ্যে পুরো ভারতে দাঙ্গা বন্ধ হলো। একথা সরোয়ার সাহেবের কাছে স্পষ্ট ছিলো গান্ধীর হাতেই সকল চাবিকাঠি। সেই সকল দাঙ্গা লাগাচ্ছে এবং মুসলিমদের হত্যা করছে।
.
দাঙ্গা বন্ধ হলে গান্ধী নোয়াখালীতে তার নিরাপত্তা চাইলেন এবং হিন্দুদের কল্যাণে আশ্রম করার অনুমতি চাইলেন। সরোয়ার সাহেব তার নিরাপত্তার ব্যবস্থা করলেন এবং নোয়াখালীর সোনাইমুড়িতে হিন্দু আশ্রম করার অনুমতি দেন। সেখানের হিন্দু নেতা হেমন্তের জায়গায় আশ্রম স্থাপিত হয়।

Authors get paid when people like you upvote their post.
If you enjoyed what you read here, create your account today and start earning FREE STEEM!
STEEMKR.COM IS SPONSORED BY
ADVERTISEMENT