টিনটিন এর কিছু এক্টিভিটিস ফটোগ্রাফ শেয়ার করছি - জন্মদিন সামনে

8일 전

আর মাত্র ৩ দিন বাকি । ২৬ তারিখে টিনটিন বাবু চারে পদার্পন করবে । বেশ খুশি খুশি লাগছে । ইতিমধ্যে টিনটিনবাবু দুটো উপহার পেয়ে গিয়েছে বাইরের দেশ থেকে । একটি পেয়েছে আমাদের প্রিয় মডারেটর তানজিরা ম্যাডাম (@tangera) এর কাছ থেকে এবং আরেকটি পেয়েছে আমাদের কমিউনিটির ভেরিফাইড এবং কোয়ালিটি ব্লগার নেভি ম্যাডাম (@rahimakhatun) এর কাছ থেকে ।

উপরোক্ত দু'জনেই আমার অনেক উপকার করেছেন । টিনটিনবাবুর বয়সের তুলনায় কথা শিখতে অনেক সময় লাগছে । এখনো কথা অস্পষ্ট, উচ্চারণে জড়তা রয়েছে । তবে, তিন-চার মাস আগেও অনেক কম ছিল একটিভিটি । এখন ৪-৫ টা ওয়ার্ড এর বাক্য বলতে পারছে ।

এর জন্য আমি উপরোক্ত দু'জনের কাছে চিরঋণী । তাঁদের দেখানো পথ অনুসরণ করে সাফল্য পেয়েছি । তানজিরা ম্যাডাম সর্বপ্রথম পরামর্শ দিয়েছিলেন এক জন টীচার রাখতে টিনটিনের জন্য, এছাড়াও একটা মোবাইল এপ্লিকেশন দিয়েছিলেন । এদুটোর সম্মিলিত ফল এখন টিনটিন বাবু কথা বলতে পারছে ।

আর নেভি ম্যাডাম এর বড় বোনের ছেলের সেম প্রব্লেম আছে । তাই, উনি প্রতিনিয়ত বাচ্চাদের ট্রেনিং এর ভিডিও, মূল্যবান পরার্মশ এবং প্রচুর ডক্টরস নোটস দিয়েছেন । উনি একটা ডেইলি একটিভিটি চার্টও করে দিয়েছিলেন । যেটা তনুজা পেয়ে খুবই খুশি হয়েছিল । অনেক কাজে লেগেছে ওটা । টিনটিন এখন অনেক একটিভ । কথা ১০০% শিখে গিয়েছে ।

তাই, আমি এই দু'জনের কাছে চির কৃতজ্ঞ । অনেক দূরে থেকেও ওনারা দু'জনে আমার জন্য অনেক করেছেন ।


bfd337a6-7809-4e4f-a8ed-602e0d4226e9.jpg


আমাদের কমিউনিটি মেম্বার @roy.sajib এর সাথে টিনটিন বাবু সেলফি তুলছে

তারিখ : ১১ আগস্ট ২০২২
সময় : রাত ৮ টা ৫০ মিনিট
স্থান : কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ।


a4fcf3bb-46f8-4cf6-9bbb-d1ca06b0ca55.jpg


টিনটিনবাবুর নিজের আঁকা তিমি মাছ । কল্পনা থেকে এঁকেছে ।

তারিখ : ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২২
সময় : রাত ৬ টা ৪০ মিনিট
স্থান : কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ।


4c5f30b2-1c94-48f9-8605-af04d24892cd.jpg

675ed166-8408-4316-860d-9362ae9f73b8.jpg

1013cb3e-3ac7-4609-bcf4-39ea54b8f078.jpg

bd9583bf-922a-4b54-a79b-6bca5907ac38.jpg


রেস্টুরেন্টে টিনটিনবাবুর মুখের এক্সপ্রেশন দেখুন । নানান মুডের নানান এক্সপ্রেশান ।

তারিখ : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২২
সময় : রাত ৮ টা ০০ মিনিট
স্থান : কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ।


8ea84295-a1b0-4948-88d1-6e1bb4b99353.jpg

64a1230c-37fa-456e-814b-b52258d2371d.jpg

baf594f2-97a4-4d82-8374-b6a91d68f273.jpg


মুড্ অফ । মুখের এক্সপ্রেশান দেখুন । মনে হচ্ছে শেয়ার মার্কেটে বিশাল লস করেছে । আসল কথা হলো বাবা কে মিস করছে । এই দিন আমি সজীব আর নিলয়কে নিয়ে ঘুরতে গিয়েছিলাম । তাই বিশাল মন খারাপ ছিল তার । যদিও ওরাও ঘুরতে গিয়েছিলো কিন্তু, সারাক্ষণ মন খারাপ ছিল । কারণ, সে তার বাবা কে মিস করছিলো প্রতিনিয়ত ।

তারিখ : ১২ আগস্ট ২০২২
সময় : বিকেল ৪ টা ০০ মিনিট
স্থান : কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ।


846f9cfd-e514-4f02-9a59-253984b7e175.jpg


লঞ্চে করে গঙ্গা বক্ষে টিনটিনবাবুর নৌবিহার ।

তারিখ : ১২ আগস্ট ২০২২
সময় : বিকেল ৪ টা ২০ মিনিট
স্থান : কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ।


549bf70e-d06d-425d-9ddc-f13ee1b95bdc.jpg


অবশেষে রাতে বাবা কে পেয়ে মুখে হাসি ফুটেছে

তারিখ : ১২ আগস্ট ২০২২
সময় : রাত ১১ টা ৫০ মিনিট
স্থান : কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ।



ক্যামেরা পরিচিতি : OnePlus
ক্যামেরা মডেল : EB2101
ফোকাল লেংথ : ৫ মিমিঃ



✡ ধন্যবাদ ✡


পরিশিষ্ট


প্রতিদিন ৩২৫ ট্রন করে জমানো এক সপ্তাহ ধরে - ৫ম দিন (325 TRX daily for 7 consecutive days :: DAY 05)


trx logo.png



সময়সীমা : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ থেকে ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ পর্যন্ত


তারিখ : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২


টাস্ক ৬৮ : ৩২৫ ট্রন ডিপোজিট করা আমার একটি পার্সোনাল TRON HD WALLET এ যার নাম Tintin_tron


আমার ট্রন ওয়ালেট : TTXKunVJb12nkBRwPBq2PZ9787ikEQDQTx

৩২৫ TRX ডিপোজিট হওয়ার ট্রানসাকশান আইডি :

TX ID : 3ad66849ea0c53b6081697141b67c7ec55729ac6cf614408747226888e17b926

টাস্ক ৬৮ কমপ্লিটেড সাকসেসফুলি


এই পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে তো যে কোনো এমাউন্ট এর টিপস আনন্দের সহিত গ্রহণীয়

Account QR Code

TTXKunVJb12nkBRwPBq2PZ9787ikEQDQTx (1).png


VOTE @bangla.witness as witness

witness_proxy_vote.png

OR

SET @rme as your proxy


witness_vote.png

Authors get paid when people like you upvote their post.
If you enjoyed what you read here, create your account today and start earning FREE STEEM!
STEEMKR.COM IS SPONSORED BY
ADVERTISEMENT
Sort Order:  trending

এবারের জন্মদিন তাহলে টিনটিন বাবুর জন্য স্পেশাল । জন্মদিনের আগেই দেশের বাইরে থেকে গিফট পেয়ে গিয়েছে। টিনটির বাবু নিজের মনের মাধুরী মিশিয়ে খুবই সুন্দর একটি মাছের আর্ট করেছে। অনেক সময় বাচ্চারা একটু দেরিতে কথা শিখে। এটার প্রধান কারণ হল অনেক ছোটবেলা থেকে মোবাইল দেখা। এখন যে সব কথা বলতে পারছে শুনে খুবই ভালো লাগলো। এভাবে আস্তে আস্তে পুরোপুরি সবকিছু শিখে যাবে আশা করি। দোয়া রইল টিনটিন বাবুর জন্য।

This post has been upvoted by @italygame witness curation trail


If you like our work and want to support us, please consider to approve our witness




CLICK HERE 👇

Come and visit Italy Community



মাশ আল্লাহ আমাদের টিনটিন বাবু কতো কিউট। প্রত্যেকটা ছবিতে তার এক্সপ্রেশন দেখে খুবই দারুণ লাগছে দাদা। বেঞ্চে বসে থাকা ছবিটা দেখে মনে হলো ওর খুব মন খারাপ। টিনটিন বাবুর জন্মদিন এর অপেক্ষায় রইলাম।

কিউট টিনটিন বাবু জন্য অনেক ভালবাসা ও আশীর্বাদ রইল টিনটিন বাবু যেন খুব দ্রুত বুদ্ধি বিকাশ ও কথাগুলো যেন স্পষ্ট হয়, ভগবান বুদ্ধ কাছের এই প্রার্থনা করি। বেঞ্চে বসে থাকা ছবিতে টিনটিন বাবু অনেক কস্টের মন নিয়ে বসে আসে মনে হয়। দাদা আপনাকে পেয়ে সবচেয়ে আনন্দ ভরা মুহুর্ত মন হাসিমাখা মুখটা কিউট নেস ভরা। শুভ হউক টিনটিন বাবু পথ চলা।টিনটিন বাবু জম্ম দিনের অপেক্ষা রইলাম।

খুব ভাল লাগলো টিনটিন সোনার ফটোগ্রাফিগুলো দেখে। 😍😍😍সত্যি কথা বলতে বাচ্চাদের এ সময়টা অনেকবেশি সুখকর। 🥰🥰🥰আধো আধো কথা বলার সময়টা ও অনেক স্মৃতিময়। এখন শুধু আর তিনদিনের জন্য ওয়েট। 🤗 অনেক শুভকামনা বাবু সোনাকে 🧡💜❤️ সবাইকে নিয়ে অনেক ভাল থাকবেন দাদা। 😊🥰😍

পৃথিবীতে কখন কোন মানুষ কিভাবে কার উপকারে আসবে এটা বলা খুব মুশকিল। তবে এটা ভেবে ও জেনে ভালো লাগছে যে টিনটিন আগের থেকে এখন অনেকটাই স্বাচ্ছন্দেই কথা বলতে পারছে এবং ওর মুখের জড়তা কেটে গেছে । সর্বোপরি সব গুলো ছবিই বেশ সুন্দর হয়েছে । লাল গেন্জিতে টিনটিন কে বেশ স্মার্ট লাগছে ভাই ।

টিনটিনবাবুর বয়সের তুলনায় কথা শিখতে অনেক সময় লাগছে । এখনো কথা অস্পষ্ট, উচ্চারণে জড়তা রয়েছে ।

প্রথমে টিনটিন বাবুকে জন্মদিনের অগ্রিম শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। টিনটিন হয়তো অন্যান্য বাচ্চাদের মত দ্রুত কথা বলা শিখেনি। অনেকের এই সমস্যাটি হয়। তবে টিনটিন যদি নিয়মিত অন্যান্য বাচ্চাদের সাথে খেলা করে তাহলে অবশ্যই তার জড়তা কেটে যাবে এবং খুব দ্রুতই কথা বলা শিখবে। আসলে বাচ্চারা খুবই অনুকরণ প্রিয়। হয়তো বাবা-মাকে অনুকরণ করে। কিন্তু তার সমবয়সী বাচ্চাদের সাথে যখন খেলা করবে তখন খেলার ছলেই অনেক কিছু শিখবে এবং জড়তা কেটে যাবে।

টিন টিন বাবু লক্ষী সোনা, দেখতে যেন চাঁদের কণা।

মানুষ মানুষের জন্য। কখন কে কার উপকারে আসবে এটা ঈশ্বর ব্যতীত কেউ বলতে পারে না। তবে আমার মনে হয় যেসব বাচ্চারা দেরিতে কথা শেখে তারা সাধারণের তুলনায় বেশি ট্যালেন্টেড হয়। যেমনটি হয়েছিল বিজ্ঞানী আইনস্টাইনের। আজকে হ্যাংআউটার সময় টিনটিন বাবু, আপনাকে প্রশ্ন করেছিল, এটি কি ? তখন আপনি উত্তর দিয়েছিলেন "ক্যালকুলেটর"। টিনটিন বাবুর ভেতরে জানার কৌতূহল প্রচুর, আমি আশা করি টিনটিন বাবু বড় হয়ে সবার মুখ উজ্জ্বল করবে। টিনটিন বাবুর জন্মদিনের অগ্রিম শুভেচ্ছা রইল। সুন্দর অপরূপ মুহূর্ত গুলো শেয়ার করার জন্য @rme দাদা আপনাকে ধন্যবাদ।

টিনটিন বাবুর জন্মদিনের আগাম শুভেচ্ছা রইল। সেই সাথে টিনটিন বাবুর এক্সপ্রেশন দেখে খুবই ভালো লাগছে। দাদা আমার বাড়ির পাশে এই প্রবলেম এর একটি শিশু রয়েছে। তারাও বেশ কিছু ট্রিটমেন্ট করার পর অবশেষে সংগীতের দিকে নজর দিয়ে এখন ভালো একটা রেজাল্ট পাচ্ছে। আপনিও ট্রাই করে দেখতে পারেন দাদা। টিন টিন বাবুকে সংগীতে উৎসাহিত করতে পারেন। আমার মনে হয় ভালো একটা রেজাল্ট পাবেন। টিনটিন বাবুর জন্য শুভকামনা রইল।

টিনটিন এখন স্পষ্ট কথা বলতে পারে এটা অনেক খুশির সংবাদ। তার বিভিন্ন ছবিতে বিভিন্ন রকম এক্সপ্রেশন দেখে বুঝা যাচ্ছে সে এখন অনেক কিছু বুঝে এবং বড় হচ্ছে। টিনটিন কে অগ্রীম জন্মদিনের শুভেচ্ছা। রয় সজিব ভাই কে দেখে ভাল লাগল। ধন্যবাদ দাদা।

দাদা আমি একটা বিষয় খুব খেয়াল করেছি সেটা হচ্ছে টিনটিনের চেহারা আর শরীর অনেক শুকনা।টিনটিন কি একদম খেতে চাইনা।আমার মনে হচ্ছে টিনটিনের উচ্চতা মাশাল্লাহ অনক ভাল কিন্ত দেখেন অনেক শুকনা।তাকে বাইরের খাবার দেওয়া যবেনা।বৌদি কে ওর খাবারের প্রতি আর একটু যন্ত শীল হতে হবে। ইনশাল্লাহ শরীর ফিরে আসবে দোয়া করি।আমার বড় মেয়ে ও এই ধরনের ছিল।এখন ভাল হয়ে গেছে। যদি রুটিন করে একটা সিদ্ধ ডিম, দুধ, এছাড়াও ঘরের তৈরি চিনিগুঁড়া চাউলের পায়েস,দিতে পারে। আমার মনে হয় বাচ্চা যেহেতু দুর্বল তাহলে তিন বেলা ঝোল করে ভাত দেওয়া ভাল। কিছু মনে করবেননা দাদা।টিনটিন কে দেখলে আমার অনেক মায়া,লাগে তাই এই লেখা গুলো লিখা।

দাদা আসলে করোনার সময় বেশিরভাগ বাচ্চারা বাড়িতে আটকে থেকেছে আর সে কারণেই তাদের কথা ফুটতে একটু দেরি হচ্ছে। পিসেমশাইয়ের কাছে অনেক এইরকম ঘটনা এসেছে। টিনটিন অনেকটা ঠিক হয়েছে যেটা খুবই প্রশান্তির। আশা করছি এটা আগামী কয়েকমাসের মধ্যে মুখে খই ফুটবে। 🤗

·

Thank you

টিনটিন এখন অনেক একটিভ । কথা ১০০% শিখে গিয়েছে ।

টিনটিনবাবুকে দেখতে অনেক কিউট। টিনটিন বাবু এখন কথা ১০০% শিখে গিয়েছে । জেনে খুশি হলাম। টিনটিন বাবুর ফটোগ্রাফি গুলো দেখে অনেক ভালো লাগলো। অনেক সুন্দর সুন্দর ফটোগ্রাফি শেয়ার করেছেন। ধন্যবাদ আপনাকে দাদা। টিনটিন বাবুর জন্য শুভ কামনা রইলো 🤲

Nice photo 😍

শুনে ভালো লাগলো আমাদের টিনটিন এখন ঠিকঠাক ভাবে কথা বলতে পারতেছে।আর ওর মুখের এক্সপ্রেশন গুলো একদম দেখার মত ছিল।কিযে ভালো লাগতেছিল খালি বার বার দেখতেছিলাম।😍

টিনটিন বাবাই এখন সম্পূর্ণ স্পষ্ট কথা বলতে পারে এজন্য আলহামদুলিল্লাহ। তানজিরা আপু এবং ওই আপুর জন্য অনেক অনেক দোয়া রইল যারা বাবাই এর কথা স্পষ্ট হওয়ার জন্য অনেক সাহায্য করেছেন। আসলে অনেক বাচ্চারাই এমনটা অস্পষ্ট কথা বলে থাকেন, তবে তাদেরকে সঠিক গাইডলাইন দিলে সেটি ঠিক হয়ে যায় সেটা আবারও প্রমাণ হয়ে গেল। সজীব রয় ভাইয়ের সাথে বাবাই এর সেলফিটি সত্যিই অসাধারণ হয়েছে💚💚💚।

অনেক অনেক কথা মনে করিয়ে দিল ছবিটা দাদা। ঐ দিন গল্টু বাবুর সাথে আমার প্রথম দেখা হয় 😊 আর আমার কোলে গল্টু বাবু দিব্যি ঘুরে বেড়ায় ,, একটুও কান্নাকাটি করে নি। এই ব্যাপারটি দেখে দিদিভাই তো রীতিমত অবাক। হিহিহিহি। টিনটিনের দুষ্টুমি গুলো আমার দারুন লাগে 😅। এমন অনেক বাচ্চাকে দেখেছি কথা শিখতে একটু দেরি হয়,, পরবর্তিতে নানান কিছু প্র্যাক্টিস করতে করতে ঠিক হয়ে যায়। এখন তো বাবু ঠিকঠাক কথা বলতে পারছে। এটা সত্যিই অনেক ভালো একটা দিক। ঈশ্বরের আশীর্বাদে খুব অল্প দিনের মাঝেই কথার ফুলঝুরি দিয়ে পুরো বাড়ির মাতিয়ে রাখবে আমাদের গল্টু সোনা 🙏।

বাবাকে ছাড়া কি অসহায় লাগছে😜।শেয়ার বাজারের মার্কেট ধসের চেয়েও বেশি🤪🤪।অবশেষে রাতে বাবাকে পেয়ে বেশ খুশি।যাই হোক টিনটিন বাবুর একটিভিটিস বেড়েছে জেনে খুব খুব ভালো এবং খুশি লাগছে।আমার পক্ষ থেকে অনেক অনেক দোয়া রইলো টিনটিন বাবুর জন্য।আশা করি সামনে সময়গুলো আরো একটিভ হবে।সকল সম্যাসা গুলো কেটে যাক,এই প্রত্যাশায় করি সব সময়ই। ধন্যবাদ

Hi @rme,
my name is @ilnegro and I voted your post using steem-fanbase.com.

Come and visit Italy Community

মানুষ মানুষের জন্য, তানজিরা ম্যাডাম আপনাকে পথ দেখিয়েছেন এবং আপনি সেই পথ অনুসরণ করেছেন আর এই পথের মাধ্যমে আপনার ছেলে অর্থাৎ টিনটিন বাবুর অনেক উপকার হয়েছে।টিনটিন বাবুর জন্য অগ্রিম জন্মদিনের শুভেচ্ছা রইল। আল্লাহ তাকে দীর্ঘ আয়ু দান করুক।

টিনটিনকে অগ্রিম জন্মদিনের শুভেচ্ছা দাদা। আর যেসব বাচ্চারা নাকী একটু জিনিয়াস হয় তারা কথা একটু দেরিতে বলে এটা শুনছি। টিনটিনের এক্সপ্রেসন গুলো চমৎকার ছিল দাদা।।

k75bsZMwYNtze9xHvT6xWCdz7q3QGD35ZKdaPpVrFksWkGjAyG7Jgdphai9LJJi2hjDg6gDnXcqjQ5PYfrcPLsBKMJ5BZEMSs5tbyS2JNogGS9SzXzyYxncu9YwutzWDWfnDFMcFAStPxjV48zXkvEWVasyaaXT74.jpeg

এই ভাবুক স্টাইল টা তো জোস লাগছে দাদা।।

দেখলেই বুঝা যায় বাবার জন্যে বিশাল টান আছে ছেলের।❤️বাচ্চাদের কথা তাড়াতাড়ি স্পষ্ট করার ও যে টেকনিক আছে তা আসলেই জানা ছিলো না দাদা,আপুদের কথা শুনে জানতে পারলাম।ভালো লাগলো বেশ শুনে।

খুব ভালো লাগলো যে বাবা টিনটিন এখন এখন কথা বলতে পারতেছে ৷আর মাত্র তিন দিন বাবুর জন্মদিন ৷নিশ্চই অনেক আনন্দ হবে ৷আর দেখতে দেখতে টিনটিন অনেক বড় হয়ে গেল দেখতেও কি কিউট ৷

টিনটিন বাবুর জন্য শুভকামনা রইল অবিরাম ৷

দাদা, টিনটিন বাবুর কথা দেরিতে বলার বিষয়টি আমি খুব একটা চিন্তার কিছু দেখছি না। অনেক ক্ষেত্রে এরকম হয়ে থাকে। দাদা আপনি নিজেও এই নিয়ে বেশি দুশ্চিন্তা করবেন না। শুধুমাত্র বাসায় আপনারা ওর সঙ্গে একাকী অনেক কথা বলার চেষ্টা করবেন। তার সঙ্গে বিভিন্ন গল্প এবং কথা বলার প্র্যাকটিস করাবেন। ইনশাআল্লাহ খুব দ্রুত এর ফল পাবেন। আমি একদিন এক শিশু বিশেষজ্ঞ কে ভিজিট করার সময় এই ধরনের পেসেন্ট দেখেছিলাম। ডক্টর বলেছিলেন বাচ্চার সঙ্গে বেশি বেশি কথা বলতে। যাইহোক বাবা ফিরে আশায় ও যে প্রচন্ড খুশি হয়েছে সেটা তার হাস্যোজ্জ্বল মুখ দেখেই বুঝতে পারছি। জন্মদিনের অগ্রিম শুভেচ্ছা ও অনেক অনেক ভালোবাসা রইলো।

টিনটিন বাবু জন্য অনেক ভালবাসা ও দোয়া রইল। টিনটিন বাবুকে জম্নদিনের অগ্রিম শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। টিনটিন বাবুকে জম্নদিনে দেওয়ার জন্য ইতিমধ্যে একটি ড্রয়িং এর কাজ শুরু করেছি।

সামনের টিনটিন বাবুর চার বছর পূর্ণ হবে জেনে খুবই ভালো লাগলো। দোয়া করি তার জন্মদিন যেন ভালোভাবে পালন করতে পারেন। বিস্তারিত বর্ণনা পড়ে খুবই ভালো লাগলো। আমার পক্ষ থেকে তানজিরা ম্যাডাম আর রহিমা আপুর অসংখ্য ধন্যবাদ জানাই।

সত্যি দাদা কার কখন কার দ্বারা উপকার হবে একমাত্র সৃষ্টিকর্তাই জানেন।আপনার কথা শুনে অনেক ভালো লাগল যে টিনটিন বাবু এখন সব কথা বলতে পারে।টিনটিন বাবু এখন বিভিন্ন ছবিতে এক্সপ্রেশন দেখে বুঝা যায় আসলে সে অনেক কিছু বুঝে। সবগুলো ছবি অসাধারণ ছিল। ধন্যবাদ

টিনটিন বাবু ১০০% কথা শিখে গেছে জানতে পেরে খুবই ভালো লাগলো আমার।টিনটিন বাবুর বিভিন্ন কার্যক্রম এবং বিভিন্ন স্টাইলের ছবিগুলো সত্যি অতি চমৎকার দেখাচ্ছে।টিনটিন বাবুর হাসিভরা মুখে দেখতে খুবই স্মার্ট লাগছে।টিনটিন বাবুর জন্য অনেক অনেক আশীর্বাদ রইল।

দাদা @roy.sajib ‍ এর সেলফিতে টিনটিন বাবুকে অনেক সুন্দর লাগতেছে। কল্পনা থেকে যে তিমি মাছের ছবি একেঁছে সেটার তো তুলনা নেই। চার বছরের বাচ্ছা যে তিমি মাছের কল্পনা করতে পারে সেটাই তো অনেক কিছু। টিন টিন বাবুর সব গুলো ছবিই অনেক সুন্দর হয়েছে। ধন্যবাদ দাদা।

প্রথমে তানজিরা ম্যাডাম (@tangera) এবং নেভি ম্যাডাম (@rahimakhatun) কে অন্তরের অন্তস্থল থেকে কৃতজ্ঞতা এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি।ওনারা টিনটিন বাবুর মুখের কথা বলার জন্য অনেক ভূমিকা রেখেছেন।তাছাড়া টিনটিন বাবুর কিউট কিউট ছবিগুলো আমার কাছে খুবই ভালো লেগেছে।
আমাদের কমিউনিটি মেম্বার @roy.sajibদাদা এর সাথে টিনটিন বাবু সেলফি দারুন ছিল,,,,,
♥♥

আজকাল বেশিভাগ বাচ্চাই কথা দেরিতে বলছে ,এর কারন একক পরিবার এবং ডিভাইস এর প্রতি আসক্তি। আমার এক আত্মীয়র বাচ্চা ৩বছর বয়সেও কথা বলছে না,তখন তারা ডাক্তারের কাছে নিয়ে যায় ডাক্তার পরামর্শ দেয় তার সাথে বেশি বেশি কথা বলতে ,আর কোন ধরনের ডিভাইস না দিতে এবং স্কুলে ভর্তি করে দিতে।তারা তাই করে ।এখন সে দিব্যি সুন্দর কথা বলছে। টিনটিন এর জন্য শুভ কামনা।

প্রথমেই টিনটিন বাবুকে জানাই জন্মদিনের অগ্রিম শুভেচ্ছা। ছবিগুলো দেখে বেশ ভালো লাগলো। তবে বাবাকে যে খুব মিস করছে ছবিগুলো দেখেই বোঝা যাচ্ছে। অবশেষে বাবাকে পেয়ে মিষ্টি মুখের সুন্দর একটি হাসি দিয়েছে ।টিনটিন বাবা অনেক অনেক বড় হও এবং বাবার মতো বড় মনের একজন মানুষ হও সেই প্রার্থনাই করি।🥰🥰

টিনটিন বাবুকে জন্মদিনের অনেক অনেক শুভেচ্ছা রইলো।আসলে এই সমস্যাটি অনেক বাচ্চাদের মধ্যে রয়েছে।আমার এক ভাইয়ের ও ছিল ।বাচ্চাদের সঙ্গে বেশি বেশি কথা বললেও বাচ্চারা দ্রুত কথা শিখতে পারে।যাইহোক টিনটিন এখন স্পষ্ট কথা বলতে শিখে গিয়েছে জেনে অনেক ভালো লাগলো।টিনটিনের মুখের এক্সপ্রেশন খুবই কিউট দেখতে লাগছে,টিনটিনের আঁকা কাল্পনিক মাছ ও অনেক সুন্দর হয়েছে।টিনটিন বাবুর জন্য ভালোবাসা ও শুভকামনা অবিরাম।

ধীরে ধীরে টিনটিন বাবু আরও এক্টিভ হবে 😊। কয়েকদিন পরে দেখবেন আর্টে পটু হয়ে যাবে। তিমি মাছ কল্পনাতে এসেছে সেটা সেইম তিমি মাছের মতো মনে হচ্ছে। আপনাকে না পেয়ে টিনটিন বাবুর যে মুড অফ ছিল দেখেই বুঝা যাচ্ছে। বাবাকে বড্ড মিস করেছে

বাহ এটা তো খুব ভালো ব্যাপার জন্মদিনের আগেই বাবু গিফট পেয়ে গেল। টিনটিন এখন কথা বলতে পারছি শুনে খুব ভালো লাগছে। যাইহোক যেদিন আপনি নিলয়দা ও সজিবদার সাথে ঘুরতে গিয়েছিলেন সেদিন তিন দিনের অনেক মন খারাপ ছিল তনুজা আপু এবং স্বাগতা আপুর পোস্টে আমি পড়েছি।‌ যাইহোক পরবর্তীতে বাবাকে পেয়ে বেশ খুশি হয়েছে বুজা যাচ্ছে।

Very good

আপনার ইন্টারনেট ব্রাউজিং কে কিভাবে আরো বেশি সুরক্ষিত করবেন: https://grathor.com/%e0%a6%86%e0%a6%aa%e0%a6%a8%e0%a6%be%e0%a6%b0-%e0%a6%87%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%9f%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a6%a8%e0%a7%87%e0%a6%9f-%e0%a6%ac%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%be%e0%a6%89%e0%a6%9c%e0%a6%bf%e0%a6%82/