ননসেন্স পোয়েট্রি : "বাথরুম" [My first nonsense verse]

17일 전

shower
image source & credit: copyright & royalty free PIXABAY


ওগো বাথরুম তুমি আছো তাই

সদ্য কৈশোর বিড়ি টানার ধুম,
আর ব্যাঙ ডাকা গলায় গান ।

চিৎকারে স্বর প্রতিধ্বনিতে
আজ হৃদয়ে ঝড় তোলে ।
স্বরের ধ্বনিতে প্রতিধ্বনি
হৃদয়ের কথা বলে ।

ভালোবাসে যাকে তারই নাম ধরে
গুনগুনিয়ে গেয়ে ওঠে ।
হিন্দি গানের সুরে
তখন বাথরুমে ঝড় তোলে ।

শাওয়ার হলো তরুণী হিয়ার

কষ্ট পাওয়ার সুখ,
এক চোখে হাসি তার আরেক চোখে জল ।

অব্যক্ত হৃদয়ের গোপন কথা
অশ্রু হয়ে ঝরে ।
প্রতিটি ফোঁটায় তার
বেদনার কথা বলে ।

কিশোরী মনের ব্যাথা
শাওয়ারের জলে মেশে ,
জলের শব্দে কান্নার শব্দ
হৃদয়ের ব্যাথা ঢাকে ।


Authors get paid when people like you upvote their post.
If you enjoyed what you read here, create your account today and start earning FREE STEEM!
STEEMKR.COM IS SPONSORED BY
ADVERTISEMENT
Sort Order:  trending

বাথরুম ই যে কত কাহিনী আর কত গোপন ব্যথার সাক্ষী , তা দাদা তোমার কবিতা তে যেমন ফুটে উঠছে তেমন আশা করি সবার জীবনেই এই অবস্থা এসছেই।

হয়তো কারোর ভালোবাসার আঘাতে, বাথরুম এর চার দেওয়াল কাজে লেগেছে , আবার হয়তো অজানা জগতের কাছে মুখ লোকাতে কেও বাথরুমে গিয়ে কান্না কাটি করেছে।

বড় হওয়ার ও কত জ্বালা ,তাই নাহ?
বাচ্চা বয়সে যার তার সামনে কত কান্না করেছি সকলে।
যেই না বয়সটা বাড়ল, লোক কি ভাববে, এই ব্যাপার মাথায় এলো। তখনই নিজের প্রাইভেসী শুরু।

সাওয়ারের জলের ঠান্ডা পরশ কখনও জ্বলন্ত ব্যথায় আরো নুনের ছিটে দিয়েছে ।
আবার কখনও সেই জলেরই পরশ পেয়ে ক্লান্ত আঘাত মুছে গেছে।

কবিতা থেকে অনেক কিছু ছবি ভেসে উঠলো। তাই হয়তো একটু বেশি লিখে ফেললাম। দাদা।

আপনার কাছে ননসেন্স পোয়েট্রি হলেও আমার কাছে কিন্তু ভালই লেগেছে কবিতা টি😅

ওগো বাথরুম তুমি আছো তাই
সদ্য কৈশোর বিড়ি টানার ধুম,
আর ব্যাঙ ডাকা গলায় গান ।

শুরুটা ভালই ছিল বেশ বলা চলে।

১:- আসলেই দাদা আজকে বাথরুম আছে বলে অনেক সদ্য কৈশোরে পা দেয়া ছেলেটা ধুমসে বিড়ি খায়। কোন কিছু ভয়-ভীতি ছাড়াই। বিড়ি খাওয়ার সাথে সাথে মনের যত কথা আছে, ব্যথা আছে সবকিছু গানের মাধ্যমে উড়িয়ে দেয়। এক কথায় যাকে বলে বাথরুম সিঙ্গার।

২:- বর্তমান সময়ে মেয়েদের অনেক প্রতিকূল পরিবেশের মুখোমুখি হতে হয়, যেটা তারা মুখ খুলে কাউকে বলতেও পারেনা। এইসব কষ্ট তারা শাওয়ার করার সময় পানির মধ্যে ফেলে দেয়।

কিশোরী মনের ব্যাথা
শাওয়ারের জলে মেশে ,
জলের শব্দে কান্নার শব্দ
হৃদয়ের ব্যাথা ঢাকে ।

ব্যাপারটি একদম সত্যি দাদা।কয়েক বছর আগেও যখন আম্মু এটা ওটা নিয়ে বকা দিতো তখন কান্না করতাম কারণ সকলের সামনে অভিমাণের কান্না করাটাও তো লজ্জার।
আপনি দেখি সকলের মনের খবর নিয়ে বসে আছে দাদা।
কি করে যে পারেন এভাবে লিখতে কে জানে!সকলের মনের গোপন ব্যাপারগুলো একেবারে ছন্দে ছন্দে সাঁজিয়ে তুলে ধরলেন আমাদের সামনে।

ভালোবাসে যাকে তারই নাম ধরে
গুনগুনিয়ে গেয়ে ওঠে ।
হিন্দি গানের সুরে
তখন বাথরুমে ঝড় তোলে..

বাথরুমে আমরা সবাই কমবেশি গান গাই। দাদা আপনার কবিতা ২ টি আমার বেশ পছন্দ হয়েছে, পড়ে সত্যি অনেক মজা পেলাম।

প্রথম লাইনটা পড়েই হাসি পেল। মাইন্ড করবেন না প্লিজ। সবটুকু পড়ার পরে মনে হলো ভালোই তো হয়েছে। চালিয়ে যান দাদা আমরা আছি আপনার সাথে

কবিতায় অনেক কথা খুব সহজেই যায় যেটা লেখনিতে অনেক সময় প্রকাশ করা যায় না। ছন্দগুলো দারুন ছিল। কিছুটা মজারও তবে কৈশোর কালের আনন্দ বেদনা খেয়ালিপনাগুলো খুব অল্প কথায় দারুনভাবে উঠে এসেছে।

মজার ব্যাপার এখানে বৈষম্য না করে দুটি কবিতা লিখা। কৈশোরে ছেলেরা বাথরুমে গলা ফাটিয়ে গান গেয়ে ঝড় তোলে এটা একদম খাটি সত্য।

শাওয়ার হলো তরুণী হিয়ার
কষ্ট পাওয়ার সুখ,
এক চোখে হাসি তার আরেক চোখে জল ।

তরুণীর মনের ব্যাথা ও আনন্দ ঘিরেও বাথরুম।

সব মিলিয়ে আসলে বলব, নন্ সেন্স নয় ভার্সগুলো বরং চেপে রাখা কৈশোর এর কিছু সুখ দু:খগাথা।

ওগো বাথরুম তুমি আছো তাই
সদ্য কৈশোর বিড়ি টানার ধুম,
আর ব্যাঙ ডাকা গলায় গান ।

চিৎকারে স্বর প্রতিধ্বনিতে
আজ হৃদয়ে ঝড় তোলে ।
স্বরের ধ্বনিতে প্রতিধ্বনি
হৃদয়ের কথা বলে ।

বাথরুম মানে কারোর কাছে বিড়ি খাওয়ার জায়গা তো কারোর কাছে হিন্দি গানের মন্স 😂😂🤣🤣

অনেকদিন পর একটা মজার কবিতা পড়লাম অনেক মজা পেয়েছি দাদা। ধন্যবাদ এত সুন্দর একটি মজাদার কবিতা আমাদের মাঝে শেয়ার করার জন্য। ভবিষ্যতে এমন কবিতা আরো চাই, । অনেক মজাদার

"ওগো বাথরুম"

মনে আছে যখন একটু বুঝতে শিখেছি আর একটু একটু গুনগুনিয়ে গান শিখেছি, তুমি ছিলে প্রথম স্টেজ গান গাওয়ার। আর যখন একটু বড় হলাম হেরে গলায় গান ধরতাম মা বলতো পাগল ছেলে 😂 তবুও দমে যাইনি এখনও পর্যন্ত মাঝে মাঝেই গেয়ে উঠি সেই অনবদ্য বাথরুম সংগীত "ও প্রিয়া তুমি কোথায়" আর কষ্ট আর বেদনায় কিছুটা চিৎকার করে কাঁদার জায়গা বাথরুম। আমি অনেক কেঁদে হালকা হয়েছি বাথরুমে। আমার মনের মতো একটা কবিতা পেয়ে খুবই ভালো লেগেছে কি বলবো☺️ মিলে গেছে সবকিছু । অনবদ্য দাদা ♥️

❣️হাজার শিল্পীর জন্মস্থান ❣️

"গুনগুনিয়ে গেয়ে ওঠে
হিন্দি গানের সুরে
তখন বাথরুমে ঝড় তোলে"

দাদা এই কথাটা কিন্তু একদমই ঠিক বলেছেন। বাথরুমে গেলে আমাদের সুপ্ত প্রতিভা বিকশিত হয়। কেন জানি বাথরুমে গোসল করতে ঢুকলেই মনের আনন্দে গান চলে আসে। আমার মনে হয় এটি সবার ক্ষেত্রেই হয়। বাথরুম আমাদের অতি আপন যেখানে আমরা মনের আনন্দে গান গাইতে পারি। হয়তোবা এই গানটি অন্য কেউ শুনলে মান সম্মান কিছুই থাকবে না তাই বাথরুম কে আপন ভেবেই গান শুনিয়ে দেই সব সময়। বাথরুমে গেলে মনে হয় যেন গলার সুর বেয়ে মধু ঝরছে। আহারে দাদা কি সুন্দর ভাবে কবিতাটি আমাদের মাঝে শেয়ার করেছেন। প্রতিটি কথায়ই যেন আমাদের মনের কথা। আপনার কবিতাটি পড়ে বাথরুমের মাঝে হারিয়ে গেলাম। আর কল্পনা করতে লাগলাম আমি কোন কাজগুলো করি। ধন্যবাদ আপনাকে দাদা।

বাথরুম আছে বলেই মাঝে মাঝে নিজেকে শিল্পী ভাবতে পারি।
বাথরুম আছে বলেই যখন তখন বৃষ্টির ফিল নিতে পারি।
বাথরুম আছে বলেই একটু রিলাক্স সময় কাটাতে পারি 🤣🤣

·

ভাই আপনার কমেন্ট পড়ে আমারতো চান্দের দেশে চলে যেতে ইচ্ছে করছে যা মজা দিলেন কমেন্টে ভাই বলার মত আর কিছু নাই।

প্রথমে বলবো আপনার কবিতাটি পড়ে অনেক ইনজয় করেছি কিন্তু প্রত্যেক কথায় হাসি পেলও প্রতিটি কথার মধ্যে অনেক ভাবার্থ লুকিয়ে আছে। নিচের এলাইন কয়টি আমার বেশি নজর কেড়েছে।

অব্যক্ত হৃদয়ের গোপন কথা
অশ্রু হয়ে ঝরে ।
প্রতিটি ফোঁটায় তার
বেদনার কথা বলে ।

দাদা আগে আমি কিছুক্ষন হেসে নেই 😁😁🤣😅। এতো মজার কবিতা আমি জীবনে আজকে প্রথম শুনলাম, দাদা অবাক করা মজা পাইছি আমি। আর পড়ে হাসতে হাসতে শেষ। তবে দাদা কবিতার কথা গুলো বাস্তব। আর বাথরুম না হলে আমরা ও থাকতাম না। আর কিছু বলার নাই 😅🙏🙏🙏

||ওগো বাথরুম তুমি আছো তাই
সদ্য কৈশোর বিড়ি টানার ধুম,

দাদা আপনার প্রতিটা লাইন অসাধারণ ভাবে সাজিয়েছেন খুবই সুন্দর হয়েছে। আমার সবথেকে ভালো লেগেছে এই দুটো লাইন। অনেকের লোকমুখে শোনা যায় বাথরুমে বিড়ি না টানলে তাদের বাথরুম হয় না।

শুভকামনা রইল দাদা আপনার জন্য।

কিশোরী মনের ব্যাথা
শাওয়ারের জলে মেশে ,
জলের শব্দে কান্নার শব্দ
হৃদয়ের ব্যাথা ঢাকে ।

ছন্দের অপুর্ব মিলনের সমন্বয় আর বাস্তব কাহিনিতে ভরপুর ননসেন্স পোয়েট্রি : "বাথরুম" [My first nonsense verse] কবিতাকার উপস্থাপনা, পাঠক হৃদয়ে বাস্তব প্রোথিত হতে পারে। আমি বিমোহিত। আশির্বাদ কামনায়.....

পৃথিবীর মধ্যে আমার কাছে সব থেকে সুখের স্থান মনে হয় যখন বাথরুমের বেগ আসে ।তখন মনে হয় কতো মুল্য সেই স্থানের ।দাদা কবিতাটি পুরোটাই খুব সুন্দর ছিলো ।এর মধ্যে প্রথম চরন গুলি একটু বেশি ভালো লেগেছে ।

ওগো বাথরুম তুমি আছো তাই
সদ্য কৈশোর বিড়ি টানার ধুম,
আর ব্যাঙ ডাকা গলায় গান।

কারন এটাই একটু নিড়িবিলি বসে এমন কাজ করতে পারেসদ্য কিশোর 😄।ধন্যবাদ ও শুভকামনা দাদা এতো সুন্দর কবিতা শেয়ার করার জন্য ।

অব্যক্ত হৃদয়ের গোপন কথা
অশ্রু হয়ে ঝরে
প্রতিটি ফোঁটায় তার
বেদনার কথা বলে

দাদা আপনার কবিতার এই লাইনটি আমার অসম্ভব ভালো লেগেছে। বাথরুম হলো এমন একটি জায়গা যেখানে আমরা মনের সব আবেগ আমাদের কান্নার মাজে বের করে দিয়ে আসতে পারি। মন ভরে ভিতরের ব্যথা গুলো বের করে দিতে কান্না একমাত্র সহজ উপায়। হয়তো পরিবারের সবার সামনে অনেক সময় চোখের পানি লুকিয়ে রাখতে হয়। ভিতরের চাপা কষ্টগুলো চাপা দিয়ে থাকতে হয়। আর বাথরুম হল এমন এক জায়গা যেখানে নিজের মতো করে নিজের কষ্ট গুলোকে প্রকাশ করা যায়। নীরবে-নিভৃতে চোখের জল ফেলে কষ্টগুলো নিমিষেই দূর করা যায়। হয়তো হাজারো কষ্টের সাক্ষী রয়েছে বাথরুম গুলো। এখানে আমরা আমাদের কষ্ট গুলোকে বিসর্জন দিয়ে আসি। নিজের কষ্টগুলো ও চোখের জল আড়াল করতে এটি খুবই সহজ একটি উপায়। দাদা আপনার কবিতার মাঝে যে কথাগুলো তুলে ধরেছেন তা আমাদের জীবনের এক প্রতিচ্ছবি। আপনার কবিতাটি আমার কাছে অনেক ভালো লেগেছে দাদা। শুভকামনা রইলো আপনার জন্য।

চিৎকারে স্বর প্রতিধ্বনিতে
আজ হৃদয়ে ঝড় তোলে ।
স্বরের ধ্বনিতে প্রতিধ্বনি
হৃদয়ের কথা বলে ।

আহা কি কবিতা, হৃদয়ের ব্যাথা
বাথরুমের ভিতরে, ঢাকা থাকে সব কথা।

দাদা আপনিও পারেন, হুট করে কিছু একটা নিয়ে বোমা ফাটাতে, এবার তো দেখছি ডাবল বোমা ফাটিয়ে দিলেন। তবে এটা কিন্তু সত্য, ছন্দে ছন্দে কবিতার পংতিতে কিছু সত্য কথা উপস্থাপন করেছেন। ধন্যবাদ

ওগো বাথরুম তুমি আছো তাই
সদ্য কৈশোর বিড়ি টানার ধুম,
আর ব্যাঙ ডাকা গলায় গান ।

সত্যি বলতে দাদা অসাধারন হয়েছে কবিতা গুলা। প্রতিটি লাইন যেনো মিলে যায় আমার সাথে। এখনো মনে পরে ছোট বেলায় বাথরুমে গিয়ে কাগজ দিয়ে বিড়ি খাওয়ার কথা। আর স্নান এর সময় গান গাওয়ার স্মৃতি গুলা।

দাদা কবিতাটি পড়ে খুব মজা লাগলো। বাথরুম নিয়ে কবিতা এই প্রথম দেখলাম। তবে কবিতার লাইনগুলো আমাদের বাস্তব জীবনের সাথে জড়িত। অনেক সুন্দর করে ছন্দ মিলিয়ে আপনি কবিতাটি লিখেছেন দাদা।
আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ দাদা এত মজার একটি কবিতা আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্য।

অব্যক্ত হৃদয়ের গোপন কথা

অশ্রু হয়ে ঝরে ।
প্রতিটি ফোঁটায় তার
বেদনার কথা বলে ।

কথাটা লাইন গুলো যেন মন ছুয়ে দিল। আসলে আমাদের মধ্যে বেশিরভাগ মানুষই যারা মনের কষ্টটা প্রকাশ করতে পারে না তাদের এই কষ্ট গুলো বের হওয়ার একটাই জায়গা যা হলো চোখের পানি। কাঁদলে যেন মনটা হালকা হয়ে যায়। আর এই চোখের পানির মধ্যেই থাকে হাজার শত বেদনা।

এত সুন্দর সুন্দর কবিতা যে আপনার মাথায় কিভাবে আসে। ধন্যবাদ এত সুন্দর কবিতা শেয়ার করে আমাদের পড়ার সুযোগ করে দেওয়ার জন্য।

আমার সমস্যা হচ্ছে দাদা আমি বাথরুমে গান গাইতে লজ্জা পাই। মাঝে মাঝে অবশ্য মনের ভুলে গেয়ে উঠি । কিন্তু মানুষ কি ভাববে চিন্তা করে আবার চুপ হয়ে যাই। কবিতাটা কিন্তু চমৎকার লিখেছেন।


শাওয়ারের জলে মেশে
কিশোরী মনের ব্যাথা
জলের শব্দে কান্নার ছাপ
হৃদয়ে ঢাকে হেথা।


♥♥


ব্যাকুল হৃদয়ের অব্যক্ত
কথার মালা
কোমল মনে বাড়ায়
শুধু জ্বালা♥♥


চমৎকার ও অসাধারণ কবিতা দাদা।কবিতায় কিশোর ও কিশোরী বয়সের কথা ব্যক্ত করা হয়েছে।এছাড়া কবিতায় একপাশে ছেলেদেরকে নিয়ে ও অন্যপাশে মেয়েদের কথা ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।
কবিতায় প্রতিটি শব্দ বাস্তবতার রূপ ফুটে উঠেছে।

★একজন কিশোর বয়সের ছেলের হৃদয়ের কোনো অজানা চিন্তাকে মুক্ত করার জন্য বিড়ি ফুঁকে নিজেকে তিলে তিলে ক্ষয় করা ,আবার কখনো ভাঙা কণ্ঠে চিৎকারে সুর ও তালহীন গান গাওয়া।যে গানে প্রকাশ পায় গভীর মনের ব্যাথা।আর এই সব কিছুই বাথরুমেই হয়।

★অন্যদিকে এক কিশোরী,যার মন ফুলের মতো নরম।সেই মনে আঘাত পাওয়ার বেদনা, চাপা কান্না ফুটে উঠেছে।যা শুধু জলের সঙ্গে মিশে যায়।

ধন্যবাদ দাদা।

ঠিকই বলেছেন দাদা যারা গান গাইতে পারে না তারা মনের আনন্দে বাথরুমে গিয়ে গান গাওয়ার একটা সুযোগ পায় তখন নিজেকে অনেক বড় একজন শিল্পী মনে হয় ।বাথরুম নিয়ে যে কবিতা লেখা যায় এটা কল্পনাতেও আসেনি এটা আপনার দ্বারাই সম্ভব ।আর বাথরুমের অনুভূতিগুলো সবার কাছে বুঝি একি আপনার কবিতার মধ্যে সেটাই ফুটে উঠেছে ।খুব ভালো লাগলো বাথরুমের কবিতাটি। অনেক ধন্যবাদ দাদা এত সুন্দর একটি কবিতা লেখার জন্য।

দাদা খুব মজা পেয়েছি কিন্তু কথা গুলি সত্যি। সত্যি বলতে কি যত ভালো বুদ্ধি আছে সব টয়লেটে গেলেই আসে 🤭🤭😶😶।

যা কবিতা দিলেন দাদা কমেন্ট এর বন্যা বয়ে যাচ্ছে হাহহাহাহহাহাহহা। সেই মজার কবিতা ছিল এটা। এমন আরো চাই দাদা।

মনে হচ্ছে তোমার কবিতা পড়ে হাসতে চাই আমার বন্ধু @rme, আমি প্রায়শই বাথরুমে গান গাই যখন হাজার হাজার শ্রোতা উল্লাস করে আমাকে একজন শিল্পী হিসাবে স্বপ্নে দেখে এবং মাঝে মাঝে আমি বুঝতে পারি যে আমি একা বাথরুমে গান গাই এবং আমার হৃদয়ে ব্যথা জাগে আমি সর্বদা আপনার পোস্টগুলি @rme দেখতে পেরে খুশি এবং এই পোস্টটি পুনরায় উপভোগ করুন যাতে সবাই এটি দেখতে পারে।

দ্বিতীয় অংশটি আমি পুরোপুরি বুঝতে পেরেছি, অশ্রু হল দ্বন্দ্বে হৃদয়ের বৃষ্টি যেখানে আবেগগুলি আমাদের আক্রমণ করে এবং একে অপরের সাথে লড়াই করে, একটি অশ্রু প্রকাশ করে যে আমরা সেই মুহুর্তে কেমন অনুভব করি কারণ সেখানে আনন্দের অশ্রু এবং কষ্টের অশ্রু রয়েছে।

ভালোবাসে যাকে তারই নাম ধরে
গুনগুনিয়ে গেয়ে ওঠে ।
হিন্দি গানের সুরে
তখন বাথরুমে ঝড় তোলে ।

  • সত্যিই বাথরুমে গেলে অনেকটা চিন্তাধারার মাথায় কাজ করে এবং গান গাওয়া থেকে শুরু করে বিশেষ করে বাথরুমে গিয়ে ফেসবুক চালাতে খুবই ভালো লাগে😅

"ভালোবাসে যাকে তারই নাম ধরে
গুনগুনিয়ে গেয়ে ওঠে ।
হিন্দি গানের সুরে
তখন বাথরুমে ঝড় তোলে ।" এইটা মিলে গেছে ভাই ।

কিশোরী মনের ব্যাথা
শাওয়ারের জলে মেশে ,
জলের শব্দে কান্নার শব্দ
হৃদয়ের ব্যাথা ঢাকে ।

এই লাইনগুলো মনে হয় প্রতিটি মেয়ের সঙ্গে মিলে যাবে। দাদা আপনি কবিতাটি মজা করে লিখলেও কবিতাটি বাস্তবধর্মী হয়েছে আপনার কবিতাটি প্রতিটি লাইন । খুবই ভালো লেগেছে আপনার কবিতাটি। ধন্যবাদ আপনাকে এত সুন্দর একটি মজার কবিতা শেয়ার করার জন্য।

দাদা আপনার প্রতিটি কথা অমূল্য প্রতিটি বাক্য যে ভাবে আপনি মিলিয়েছেন ।আপনার কবিতার ভাষা গুলো না বুঝলেও পড়ে ভালো লাগলো।

@rme I really enjoyed your post and I have started following you now. I am lunching a voting bot, but I just need assistance of delegate from you, it's optional if you want buy it will really assist me. Thanks

দাদা কবিতাটা অনেক মজার ছিল তার কারণ হলো বাথরুম নিয়ে একটি কবিতা। এরকম কবিতা জীবনে প্রথম শুনলাম অসংখ্য ধন্যবাদ এত সুন্দর একটি কবিতা আমাদের মাঝে শেয়ার করার জন্য।

দাদা প্রথমে বলব আপনার প্রতিভা অসাধারণ। বাথরুম নিয়ে অসাধারণ একটা কবিতা লিখেছেন। বাথরুমে কখনো বিড়ি খাওয়া হয়নি।তবে খেতে দেখেছি কলেজে ক্লাস শেষ করে বন্ধুরা খেতো। তবে ভাঙ্গা গলায় বাথরুমে গান গাইতে ভালোই লাগে।বাথরুম বসে গান ধরলে নিজেকে সব সময় বড় মাপের গায়ক মনে হয়😃😃

দাদা,খুবই মজা লেগেছে কবিতাটি পড়ে। বাথরুম কত আপন হয়ে গেল এসব কাজের জন্য। হয়তো অনেকের ক্ষেত্রে এটি সম্পূর্ণভাবে মিলেও যেতে পারে। খুব সুন্দর হয়েছে কবিতাটি, ননসেন্স হলেও মজার কবিতা।

This post has been upvoted by @italygame witness curation trail


If you like our work and want to support us, please consider to approve our witness




CLICK HERE 👇

Come and visit Italy Community



দাদা অনেক সুন্দর করে কবিতটি লিখছেন।কবিতাটি প্রতিটি লাইনে আমাদের সব মানুষের জীবনের সাথে অতপ্রতোভাবে জড়িতে।আর কবিতাটি পড়ে অনেক ভালো লাগলো দাদা।এতে সুন্দর কবিতা শেয়ার করার জন্য অনেক ধন্যবাদ দাদা।

খুবই খুবই সুন্দর কবিতা। আমার অনেক ভালো লেগেছে, কারণ বাথরুম নিয়ে কবিতা এই প্রথম আমি শুনলাম। আপনি খুবই ভালো কবিতা লিখতে পারেন। আপনি আসলেই সব বিষয়েই সুপারস্টার। আপনার জন্য অনেক অনেক শুভকামনা দাদা।

কবিতাটা কিন্তু বেশ মজার। কমেন্ট সেকশন দেখে বোঝা যাচ্ছে যে আমাদের এখানে প্রচুর বাথরুম সিঙ্গার রয়েছে🤫😅, বাইরে ব্যাঙের গলা হলেও বাথরুমে গিয়ে সব সনু নিগাম হয়ে যায়👨‍🎤😉😉

দাদা এক কথায় অসাধারণ ।আমি রিষ্টিম করে রেখেছি কারন কবিতাটি আমার ভাল লেগেছে।আমার কিছু অভিজ্ঞতা আছে গ্রামের বাড়ীতে এই বাধরুম নিয়ে যদিও গ্রামে তখন কার সময় বাধরুম মানে বাশঁ এবং কলাপাতার তৈরী ডোবার উপর টয়েলেট তাও আবার পুকুরের সাথে কানেকটেড। কোন শাওয়ার নেই কান্না লুকাবার আছে পুকুর। তো সেই অভিজ্ঞতা থেকে দুটো চারটে লাইন মিলানোর চেষ্টা ।

গ্রামের টয়েলেট হয় খুবি উচুতে
নিচে জল টল টল
মাছেরা চলে আসে গিলিতে
টুপ করে পড়ে যদি মল।
শীতল হাওয়া লেগে মনে হয় এসি
বিড়ির টানে মনে হয় খুব শান্তিতে আছি।

ধন্যবাদ দাদা

আপনার পোয়েট্রি অনেক সুন্দর হয়েছে। খুবই ভালো লাগলো আপনার কবিতাগুলো পড়ে। দ্বিতীয় অংশের কবিতাটি আমার বেশ ভাল লেগেছে। আপনি সত্যিই অসাধারণ কবিতা লিখেছেন। আশা করি ভবিষ্যতে আরো অনেক সুন্দর সুন্দর কবিতা আমাদের উপহার দিবেন। আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ এমন সুন্দর কবিতা উপস্থাপন করার জন্য।