দক্ষিণ কোরিয়া ভ্রমণের কয়েকটি ছবি (South Korea Tour Photography)

2개월 전

আজ থেকে চার বছর আগে এক অক্টোবর-নভেম্বর মাসে দক্ষিণ কোরিয়া ভ্রমণের সুযোগ হয়েছিল । ট্রাভেল প্লেস ছিল দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউল । চমৎকার জায়গা । চোখ ধাঁধানো আলোকসজ্জা রাতের বেলা, দিনের বেলা ছিমছাম সাজানো গোছানো একেবারে যাকে বলে টিপটপ শহর । খাবার নিয়ে শুধু আমার একটু আপত্তি ছিলো । অনেক উদ্ভট খাবার খায় এখানকার মানুষ । যাই হোক মোটের উপরে দারুন একটি দেশ ও তার সংস্কৃতি ও ঐতহ্য । আমাকে মুগ্ধ করেছিল ।

আরো বেশ কয়েকটি দেশে ভ্রমণের সুযোগ হয়েছে এই পর্যন্ত । শ্রীলংকা, নেপাল, ভুটান, চীন, ভিয়েতনাম, হং কং, কোরিয়া, মালয়েশিয়া, জাপান, জার্মানি প্রভৃতি । ভাবছি প্রতিদিন কিছু কিছু ফটোগ্রাফ শেয়ার করবো আমার পার্সোনাল অ্যালবাম থেকে । আজকে সময় বড়োই অল্প, মনটাও ভালো নেই । তাই বেশি কিছু লিখছি না । পরে ডিটেইলে ভ্রমণ কাহিনী লিখবো । আজকে জাস্ট কয়েকটি ট্রাভেল ফটোগ্রাফি শেয়ার করলাম এখানে ।

নিচের প্রত্যেকটি ফটোগ্রাফ আমার পার্সোনাল পারিবারিক ফোটো অ্যালবাম থেকে নিয়ে শেয়ার করা ।

দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউল (Seoul) থেকে তোলা প্রতিটা ফটোগ্রাফ । মোবাইল দিয়ে তোলা তাই রেসল্যুশন কিছু কিছু ক্ষেত্রে খুব একটা ভালো আসেনি ।

যাই হোক আশা করছি ভালোই লাগবে আপনাদের ।


20171030_193811.jpg


সিউলের রাতের রাস্তা
আলোকচিত্র তোলার তারিখ : ৩০ অক্টোবর, ২০১৭
স্থান : Nonhyeon-ro 105-gil, Yeoksam-dong, Gangnam-gu, Seoul, 06121, South Korea


20171105_095847.jpg


হোটেলের জানালা দিয়ে বাইরের দৃশ্য অবলোকন
আলোকচিত্র তোলার তারিখ : ০৫ নভেম্বর, ২০১৭
স্থান : Eonju-ro, Yeoksam-dong, Gangnam-gu, Seoul, 06152, South Korea


20171105_134656.jpg


আমার মিটিং ছিলো যে বিল্ডিং এর অফিসটিতে সেই বিল্ডিঙের বহির্দৃশ্য
আলোকচিত্র তোলার তারিখ : ০৫ নভেম্বর, ২০১৭
স্থান : Hoehyeon-dong, Jung-gu, Seoul, 04637, South Korea


20171105_150559.jpg


নামসেন পার্ক ফায়ার স্টেশন । সিউল নামসেন দুর্গের বহির্বিভাগ
আলোকচিত্র তোলার তারিখ : ০৫ নভেম্বর, ২০১৭
স্থান : Namsan Park Namsan Beacon Fire Station, Fortress Wall of Seoul Trail Namsan Course, Pil-dong, Jung-gu, Seoul, 04340, South Korea


20171105_151122.jpg


নামসেন দুর্গের টাওয়ারের জানালা দিয়ে বাইরের দৃশ্য অবলোকন
আলোকচিত্র তোলার তারিখ : ০৫ নভেম্বর, ২০১৭
স্থান : Namsan Seoultower, 105, Namsangongwon-gil, Yongsan 2(i)-ga-dong, Yongsan-gu, Seoul, 04340, South Korea


20171105_151134.jpg


নামসেন দুর্গের টাওয়ারের
আলোকচিত্র তোলার তারিখ : ০৫ নভেম্বর, ২০১৭
স্থান : Namsan Seoultower, 105, Namsangongwon-gil, Yongsan 2(i)-ga-dong, Yongsan-gu, Seoul, 04340, South Korea


ক্যামেরা পরিচিতি : samsung
ক্যামেরা মডেল : SM-G935S
ফোকাল লেংথ : ৪ মিমিঃ


Authors get paid when people like you upvote their post.
If you enjoyed what you read here, create your account today and start earning FREE STEEM!
STEEMKR.COM IS SPONSORED BY
ADVERTISEMENT
Sort Order:  trending

দক্ষিণ কোরিয়া জায়গাটাতে আমার ভীষণ যাওয়ার ইচ্ছে কিন্তু কখনো সুযোগ হবে কিনা জানিনা,যদি কখনো সুযোগ হয় অবশ্যই আমি সেখানে যাব। দাদা আপনার কত জায়গায় ঘোরার অভিজ্ঞতা রয়েছে সত্যিই ভালো লাগলো শুনে। জায়গাগুলো আমাদের কাছে সত্যিই স্বপ্নের মত।আপনার তোলা প্রত্যেকটা ফটোগ্রাফি খুবই সুন্দর বিশেষ করে সিউলের রাতের রাস্তা, রাস্তাগুলো সত্যি কত পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন, জানলার বাইরের দৃশ্য যে হলুদ পাতাগুলো রয়েছে দারুণ লাগছে, দুর্গের টাওয়ার সব মিলিয়ে খুব সুন্দর সুন্দর ফটোগ্রাফি আপনি আমাদের সাথে শেয়ার করলেন। দাদা আপনার প্রত্যেকটা ভ্রমণের ফটোগ্রাফি পাওয়ার অপেক্ষায় রইলাম।অনেক শুভকামনা রইল আপনার জন্য।

ওয়াও দাদা, আপনি অসাধারণ সুন্দর একটি শহরে ভ্রমণ করেছেন। দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউলে শহরের আরো অনেক চোখ ধাঁধানো ফটোগ্রাফি দেখতে চাই দাদা। দাদা আপনার ফটোগ্রাফির গুলোর মধ্যে আপনার মিটিং করা বিল্ডিং এর ফটোগ্রাফি এবং নামসেন টাওয়ারটি দেখতে খুবই ভালো লেগেছে আমার। দাদা আপনার দক্ষিণ কোরিয়া ভ্রমণের পরবর্তী পোষ্টের অপেক্ষায় রইলাম। দাদা আপনার জন্য অনেক অনেক শুভকামনা রইল।

সত্যি দাদা এ যেন এক অপরূপ সুন্দর দৃশ্য , আমাদের মতো লোকেদের কাছে এটি পুরো একটি ভিন্ন জগৎ।।
এখানের প্রতিটি ছবি আমার মন কেরেছে । এত সুন্দর ভ্রমণের দৃশ্য আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ দাদা।।।

আপনার ট্রিপ সত্যিই আশ্চর্যজনক ছিল, আসলে আমি দক্ষিণ কোরিয়ার একটি শহরের পরিবেশ কখনও দেখিনি এবং এই খুশির রাতে আমি আপনার শেয়ার করা ছবিগুলিতে খুব স্পষ্ট দেখতে পাচ্ছি এবং আপনি কিছু ছবি শেয়ার করেছেন যেগুলি শহরের উপর থেকে খুব সুন্দর। শহর পরিষ্কারভাবে দেখুন।

ভাগ করে নেওয়ার জন্য ধন্যবাদ 🥰🥰

দাদা আপনার দেশ ভ্রমণ এর তালিকা পড়তে পড়তে তো নিজেই টায়ার্ড হয়ে গেলাম।তবে আমি সত্যিই খুব খুশি হয়েছি পড়ে কারণ এমন একটি মানুষের ছায়ায় আমরা আছি যার অনেক কিছু নিয়ে জ্ঞান আছে।আপনার আজকের ছবির মধ্যে হোটেলের জানলা দিয়ে বাইরের দৃশ্যের ছবিটি জাস্ট অসাধারণ হয়েছে।

চমৎকার একটি শহরে এই সিউল। এই শহর সম্বন্ধে জানার খুব একটা সুযোগ কখনো হয়নি। তবে আপনার ছবিগুলো খুবই সুন্দর হয়েছে। বিশেষ করে দ্বিতীয় ছবিটা এবং শেষ ছবিটার আগের ছবিটা। আপনার ভ্রমণ কাহিনীর জন্য অপেক্ষা করে থাকলাম দাদা।

বাহ ভাইয়া আপনার তো অনেকগুলো দেশ ভ্রমণের সুযোগ হয়েছে এ পর্যন্ত। প্রতিটি ভ্রমণই নিশ্চয়ই অনেক রোমাঞ্চকর হয়েছে। যখনই দেশের বাইরের কোন ফটোগ্রাফ দেখি তখন প্রথমেই আমার মাথায় আসে, ইস যদি আমাদের দেশটাও এমন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন হত। প্রতিটি জায়গায় খুবই চমৎকার লাগছে দেখতে ভাইয়া। ধন্যবাদ আপনার পার্সোনাল এইসব মুহূর্তগুলো আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্য।

দাদা আপনার দক্ষিণ কোরিয়ার ভ্রমণের ফটোগ্রাফি গুলো সত্যিই অসাধারণ হয়েছে জাস্ট অসাধারণ। প্রত্যেকটা ছবি খুব সুন্দর দেখে তাকিয়ে থাকতে ইচ্ছে করছে। আপনার জন্য আমাদেরও দেখা হল দক্ষিণ কোরিয়ার দেশের কিছু কিছু অংশ। আমার কাছে প্রত্যেকটা ছবি খুব ভালো লেগেছে। আসলে দেশটা খুবই সুন্দর। তবে সবচেয়ে বেশী ভালো লেগেছে হোটেলের জানালা দিয়ে বাহিরের দৃশ্যটি। আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ দাদা এত সুন্দর ফটোগ্রাফি গুলো আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্য। আপনার জন্য অনেক অনেক শুভকামনা রইল দাদা।

কোরিয়া দেখেই বুকটা ছ্যাঁৎ করে উঠলো। কিম জং উনের দেশ থেকে সশরীরে ফিরতে পারলে! তারপর আরেকবার নামটা পড়লাম, ধড়ে প্রাণ এলো।

সুন্দর সুন্দর শহরের ছবি তো পেলাম তবে খাবারের ছবি পেলে আরো ভালো হতো। খিক খিক। 😁

দাদা ছবি গুলো আসলেই অনেক সুন্দর। হয়তোবা কখনো এই দেশগুলোতে যাওয়া হবেনা। সব কিছু কল্পনা আর ছবির মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকবে। দক্ষিণ কোরিয়ার বিভিন্ন জায়গার এত সুন্দর সুন্দর ছবি আপনি আমাদের মাঝে অনেক সুন্দর ভাবে উপস্থাপন করেছেন। আর সব থেকে বড় কথা হল আপনার ব্যক্তিগত অ্যালবাম থেকে এর ছবি গুলো আমাদের মাঝে উপস্থাপন করেছেন। আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ দাদা।
আপনার প্রতি শুভকামনা রইল। নিজের খেয়াল রাখবেন।

দাদা এ পর্যন্ত আপনি দশটা দেশ ভ্রমণ করেছেন। এটা জেনে সত্যি অনেক ভালো লাগলো। দাদা চার বছর আগের ছবি শেয়ার করেছেন এখন এটা আমাদের ভাগ্যের ব্যাপার দেখার। তবে আপনি এখনো ছবিগুলো স্মৃতিময় আকারে রেখে দিয়েছেন। আমার কাছে টাওয়ার টা অনেক ভাল লেগেছে। ধন্যবাদ দাদা আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্য। শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা রইল অবিরাম।

দাদা আপনার দক্ষিন কোরিয়ার ভ্রমন চমৎকার ছিলো, ইনশাআল্লাহ আশা আছে সারা পৃথিবী ঘুরে দেখার আমার ইউনিভার্সিটির ক্লোজ এক বড় ভাই দক্ষিন কোরিয়ায় স্কলারশিপ পেয়েছে। দাদা আপনার ফটোগ্রাফিগুলা জাস্ট অসাধারণ, খুব পরিচ্ছন্ন একটি শহর শিউল সিটি৷ আপনার জন্য শুভকামনা দাদা💓💓💓💓

সবগুলো ছবি স্বপ্নের মতো লাগছে। দক্ষিণ কোরিয়া সাজানো গোছানো সুন্দর শহর। তবে এদের খাদ্যাভ্যাস একটু অন্যরকম। যাক আপনি মানিয়ে নিয়ে সুন্দর ভ্রমন করেছেন।
ছবিগুলো সত্যিই চোখ ধাঁধানো ছিল। সামনে মনে হয় আরো সুন্দর ছবি দেখবো ☺️

দাদা,আপনি দক্ষিণ কোরিয়া ভ্রমণ করেছেন খুবই উপভোগ করেছেন আপনার ফটোগ্রাফি গুলো দেখেই বোঝা যাচ্ছে।আসলে দাদা,দক্ষিণ কোরিয়া দেশটি খুবই সুন্দর আমি ইন্টারনেটে দেখেছি।এবার সরাসরি আপনার ফটোগ্রাফি গুলো দেখে বুঝতে পারলাম সত্যিই খুবই সুন্দর একটি দেশ।দাদা ঠিক বলেছেন দক্ষিণ কোরিয়ার খাবার গুলো যেন কেমন প্রায় সময় অনেকের মুখে এই কথাগুলো শুনি।ফটোগ্রাফি গুলো অসাধারণ সুন্দর হয়েছে।সবগুলো ফটোগ্রাফির মধ্যে আমার হোটেলের জানালার বাইরের দৃশ্যর ফটোগ্রাফি টা আমার খুবই ভালো লেগেছে। অসংখ্য ধন্যবাদ দাদা এত সুন্দর সুন্দর ফটোগ্রাফি আমাদের মাঝে শেয়ার করেছেন।

বাহ দাদা এইটা অজানা ছিল। আপনি এতোগুলো দেশ ঘুরেছেন। এবং চীন জাপান কোরিয়া এদের খাবার গুলো আমার কাছেও উদ্ভট লাগে। কী সব কাঁচা মাছ মাংস খেয়ে থাকে।

এবং কোরিয়া শহরের ছবিগুলি অসাধারণ হয়েছে দাদা। আর হবে নাই বা কেন বিদেশ বলে কথা। পরবর্তী ভ্রমণ কাহিনী এবং ছবিগুলোর জন্য অপেক্ষায় থাকলাম দাদা।

দারুণ একটি পোস্ট ছিল দাদা।।

আপনার ভ্রমণের ফটোগ্রাফি গুলো দেখে সত্যিই খুব ভালো লাগলো দাদা। দক্ষিণ কোরিয়া দেশটি যে এত সুন্দর আপনার এই ফটোগুলো শেয়ার না করলে কখনোই বুঝতে পারতাম না। আবারো আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ দাদা। তবে একটু হতাশ হলাম আপনার মন খারাপ এ কথাটি শুনে। আশা করি খুব তাড়াতাড়ি আপনার মন ভালো হয়ে যাবে।

দাদা আপনি একদম ঠিক বলেছেন দক্ষিণ কোরিয়া এশিয়া মহাদেশের মধ্যে অন্যতম একটি ধনী দেশ। এদেশ অনেক গোছানো এবং প্রযুক্তি সম্পন্ন একটি দেশ। পরিবেশগত দিক দিয়েও এ দেশটি উচ্চ কাতারে। পরিষ্কার পরিছন্নতা, রাস্তাঘাটের প্রশস্ততা, এবং এদের খাবার ব্যবস্থা সত্যি এশিয়ার অন্যদের থেকে আলাদা। আমার কোরিয়া সম্পর্কে মোটামুটি ধারণা আছে এইজন্য আমার ভাইয়া মানে আমার দুলাভাই উনি কোরিয়ায় থাকতেন ।কিছুদিন আগে উনি দেশে এসেছেন। উনি যখন বাসায় আসতেন কোরিয়া সম্পর্কে আমরা অনেক কিছু জানতে পারতাম ।ভাইয়া কোরিয়ার খুব প্রশংসা করতেন যে কোরিয়া খুব পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ,নিয়ম-নীতি সম্পূর্ণ একটি দেশ। আর সেই কথাটি কতটা সত্য তা আপনার ফটোগ্রাফির মাধ্যমে আমরা বুঝতে পেরেছি। অথচ এই কোরিয়া একদিন জাপানের অধীনে ছিল। তারা কত দ্রুত প্রযুক্তিগত কাঠামোগত দিক দিয়ে এশিয়ার অন্যান্য দেশকে ছাড়িয়ে গেছে ।সেখান থেকে আমাদের অবশ্যই বিশেষ করে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর শিক্ষা নেওয়া উচিত।

অসাধারণ ছিল দাদা আপনার ভ্রমণের যাত্রা টি। ছবিগুলো অসম্ভব সুন্দর হয়েছে। আর বাইরের দেশগুলো রাস্তাঘাট সবকিছুই একদম চকচক করে। শুধু বাংলাদেশ আর ভারত বাদে হাহাহা । আপনার যাত্রাটা বেশ দারুন ছিল মনে হচ্ছে। তবে আপনার আজকে মন খারাপ শুনে খুব খারাপ লাগলো। আশা করি খুব শীঘ্রই আপনার মন ভালো হয়ে যাবে।

ধন্যবাদ শুভকামনা এবং মন ভরা ভালোবাসা রইলো আপনার প্রতি।

দাদা আপনার জন্য শুভকামনা রইল, শুভ হোক আপনার আগামী দিনের পথ চলা, দক্ষিণ কোরিয়া, চীন, ভিয়েতনাম, মালয়েশিয়া, নেপাল, ভুটান, হংকং, জাপান ও জার্মানির সহ অনেক দেশে ভ্রমণের সুযোগ হয়েছে দাদা আপনার । এটা বিশাল খুশির খবর আমাদের জন্য, আমরা বিভিন্ন দেশের ফটোগ্রাফি গুলো সুন্দরভাবে আপনার থেকে দেখতে ও উপভোগ করতে পারব। ফটোগ্রাফি গুলো খুবই সুন্দর হয়েছে দাদা দেখে মনেই হচ্ছে না যে মোবাইল দিয়ে তোলা হয়েছে। দাদা আপনার জন্য অনেক অনেক দোয়া ও ভালোবাসা রইলো।

দাদা প্রথমে আপনার ভ্রমণ শুভ হোক এই দোয়া করি। দক্ষিণ কোরিয়া ভ্রমণের এত সুন্দর ফটোগ্রাফি আপনি করেছেন যা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। আপনি খুবই দক্ষতার সাথে এই ফটোগ্রাফি গুলো করেছেন। আপনার প্রত্যেকটা ফটোগ্রাফি আমার খুবই ভালো লেগেছে।বিশেষ করে নামসেন দুর্গের টাওয়ারের জানালা দিয়ে বাইরের দৃশ্যের ফটোগ্রাফি আমার খুবি ভালো লাগছে। খুবই সুন্দর জায়গা আপনার ফটোগ্রাফির মাধ্যমে আমি বুঝতে পেরেছি। এই শহরটি একদম পরিষ্কার পরিছন্নতা। শহরটিতে ভ্রমণ করার হয়তোবা আশা পূরণ হবে কিনা, তবে আপনার ফটোগ্রাফির মাধ্যমে শহরটি সুন্দর ভাবে দেখতে পেলাম। আপনাকে অনেক ধন্যবাদ।

দাদা প্রথমেই আপনাকে ধন্যবাদ জানাই কারণ আপনার জন্য দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউলের এত সুন্দর সুন্দর ফটোগ্রাফি দেখতে পেলাম। আসলে সত্যি একদম সাজানো-গোছানো পরিষ্কার শহর।দেখে ভালো লাগলো। আমার ধারণা যে আপনার ফটোগ্রাফির জন্য শহরটি আরো বেশি সুন্দর লাগছে দেখতে।
আপনি এত দেশ ভ্রমণ করেছেন কিন্তু আপনার পাশের দেশেই আপনি আসেননি। খুবই দুঃখজনক। আশা করি খুব দ্রুতই সেখানেও ভ্রমণ করবেন।

আশা করছি দক্ষিণ কোরিয়া ভ্রমণ এর প্রতিটা মুহূর্ত আপনি খুবই উপভোগ করেছেন। আপনার ফটোগ্রাফি গুলো আমার খুবই ভালো লেগেছে। দক্ষিণ কোরিয়া খুবই আধুনিক এবং পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন শহর। সেটা আপনার ফটোগ্রাফির মাধ্যমে আমি বুঝতে পেরেছি এবং আপনি খুবই সুন্দর সুন্দর জায়গায় ভ্রমণ করেছেন। এরকম জায়গা ভ্রমন করার খুব ইচ্ছা করছে।আপনার প্রত্যেকটা ফটোগ্রাফি আমার খুবই ভালো লেগেছে। আপনার জন্য অনেক অনেক শুভকামনা রইল।

অল্প কথায় অনেক কিছু শেয়ার করেছেন দক্ষিন কোরিয়া দেশ সম্বন্ধে। খুব চমৎকার কিছু ছবি শেয়ার করেছেন এবং ভবিষ্যতে পরবর্তী পোস্টে আশা করছি ভ্রমণকাহিনী শেয়ার করবেন। আপনার মন ভালো হোক এই কামনা রইল।

বাইরের সংস্কৃতি, ঐতিহ্য এবং জীবনযাত্রা দেখলে আমাদের মনের অনেক পরিবর্তন ঘটে এবং আমরা আসলে অনেক ভিন্ন ভিন্ন কালচার সম্বন্ধে জানতে পারি। দাদার অনেক দেশ ভ্রমণের অভিজ্ঞতা আছে এবং আগামী দিনগুলোতে ভিন্ন ভিন্ন দেশের ভিন্ন ভিন্ন সংস্কৃতি এবং অনেক বিস্তারিত অনেক কিছু জানতে পারবো এই সিরিজ এর মাধ্যমে।

দাদা ভ্রমণ করতে আমি নিজেও অনেক পছন্দ করি। যেকোনো সময় যেকোনো জায়গায় ভ্রমণ করতে চলে যাই। আপনার ভ্রমণ টা দেখে আমারও দেশের বাহিরে ভ্রমণ করতে খুব ইচ্ছা করতেছে। দাদা আপনি অনেক দেশেই ভ্রমণ করেছেন। আপনার ভ্রমণ লিস্ট টা দেখে আমি আশ্চর্য হলাম। আমার জন্য দোয়া করবেন আমি যেন দেশের বাহির থেকে ঘুরে আসতে পারি।

আমার দুই নাম্বার ছবিটি খুবই সুন্দর লেগেছে দাদা। কত সুন্দর গোছালো পরিবেশ। ছিমছাম নিরিবিলি । আর রাস্তার পাশেই দুটি গাছ, আর গাছে হলুদ রঙের পাতা। সব মিলিয়ে অসাধারণ লাগছে দেখতে।

প্রথম ছবির মোশন দৃশ্যটাও দেখতে অনেক ভালো লেগেছে। পারফেক্ট শট্ ছিল।

দাদা দক্ষিণ কোরিয়ার ভ্রমণটা আশা করছি আপনার অনেক আনন্দের সাথে হচ্ছে। দক্ষিণ কোরিয়া ভ্রমণের এই সুন্দর ফটোগ্রাফি গুলো আমার খুবই ভালো লেগেছে। আপনি অনেক দক্ষতার সাথে এই ফটোগ্রাফি গুলো করেছেন। প্রত্যেকটা ফটোগ্রাফি আমার খুব ভালো লেগেছে। শেষের নামসেন দুর্গের টাওয়ারের ফটোগ্রাফি আমার খুবই ভালো লেগেছে। আপনি অনেক সুন্দর ভাবে ফটোগ্রাফি করতে পারেন। আপনার জন্য শুভকামনা রইল দাদা।

আপনি যে দক্ষিণ কোরিয়া ভ্রমণ করেছেন তার প্রতিটি ফটোগ্রাফি ছিল অসাধারণ। জায়গা গুলো সত্যিই খুব চমৎকার এবং শহরটা বেশ নিরিবিলি এবং সুন্দর।

দাদা আপনি কিন্তু বেশ কয়েকটি দেশ ভ্রমণ করেছেন সেটা অনেক সৌভাগ্যের কপাল। এটা সবার কপালে জোটে না

তবে আপনি কোন কারণে মন খারাপ হয়ে আছেন জানিনা। তবে মন খারাপ করবেন না। অবশ্যই সৃষ্টিকর্তা খুব দ্রুত আপনার মন ভালো করে দিক এই কামনা করি।

পরবর্তী দিনে আরও আপনার সুন্দর সুন্দর ভ্রমণের ফটোগ্রাফি গুলো দেখার অপেক্ষায় রইলাম।

দক্ষিণ কোরিয়াতে আমার বড় ভাই থাকে, দক্ষিণ কোরিয়া খুবই সুন্দর এবং নিরিবিলি শহর। এই শহরটা খুবই সুন্দর এবং আধুনিক শহর। আপনার ফটোগ্রাফির মাধ্যমে আমি সেটা বুঝতে পেরেছি। সত্যিই অনেক আধুনিক এবং খুবই সুন্দর আপনার প্রত্যেকটা ফটোগ্রাফি আমার খুবই ভালো লেগেছে। আপনি অনেক দক্ষতার সাথে ফটোগ্রাফি গুলো করেছেন। ফটোগ্রাফি গুলো খুবই সুন্দর হয়েছে এবং জায়গা গুলো অনেক সুন্দর। আপনার ভ্রমণ শুভ হোক এই আশা করি।

বাহ দাদা খুব সুন্দর একটি মুহূর্ত কাটিয়েছেন ভ্রমণের মধ্য দিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার দৃশ্যগুলো ছিল অসাধারন যা ছিল দেখার মতো প্রত্যেকটা ফর ফটোগ্রাফি দৃশ্য ছিল অসাধার।ণ আমার অনেক ভালো লেগেছে এরকম দক্ষিণ কোরিয়ার ভ্রমণের দৃশ্য আমাদের মাঝে শেয়ার করার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ দাদা।

দক্ষিণ কোরিয়ার ভ্রমণের ফোটোগ্রাফি গুলো আমার খুবই ভালো লেগেছে। আপনি খুবই সুন্দর ভাবে এই ফটোগ্রাফি গুলো করেছেন।আপনার প্রত্যেকটা ফটোগ্রাফি আমার অনেক ভালো লেগেছে। আসলে দক্ষিণ কোরিয়া খুবই আধুনিক শহর, ফটোগ্রাফির মাধ্যমে আমি সেটা বুঝতে পেরেছি।এই ফটোগ্রাফির মাধ্যমে আমরা দক্ষিণ কোরিয়া শহর এবং সুন্দর সুন্দর জায়গা দেখতে পেলাম। বিশেষ করে
সিউলের রাতের রাস্তা ফটোগ্রাফি ও
নামসেন দুর্গের টাওয়ারের জানালা দিয়ে বাইরের দৃশ্যের ফটোগ্রাফি আমার খুবি ভালো লাগছে। আপনাকে অনেক ধন্যবাদ দাদা।

বাহ্ স্থান দর্শন করেছেন দেখছি। আমার কাছে এগুলো স্বপনের মতো লাগে।এসব জায়গায় যাওয়ার ভাগ্য জুটবে কি সেটাও বড় কথা।আপনার পুড়নো এ্যালবামের কিছু ফটোগ্রাফি ভালো লেগেছে। 😍😍

দাদা শুভেচ্ছা নিবেন, দক্ষিণ কোরিয়া ভ্রমনের ছবি গুলো দেখছি আর ভাবছি ওদের শহর কত পরিস্কার । আর মজা পেয়েছে দক্ষিন কোরিয়ার উদ্ভট খাবারের কথা শুনে। আপনি তো খেতে পছন্দ করেন জানিনা কি খেয়েছিলেন। ওদের সব চিং চুং চাং খাবার হা হা হা । কি দিয়ে কি তৈরী করে খায় ওরাই জানে। যাই হোক ফটোগ্রাফী সুন্দর এবং আমাদেরও কিছুটা হলেও দক্ষিন কোরিয়া দেখা হল। ধন্যবাদ।

মোবাইল ফটোগ্রাফি হোক আর ডিএসএলআর ফটোগ্রফি। আপনার হাতে তোলা প্রত্যেকটা ফটোগ্রাফি অনেক সুন্দর হয়।
2017 সালে তোলা ফটোগ্রাফির কোয়ালিটি এত সুন্দর হবে তা আগে জানতাম না। প্রত্যেকটি ছবি অনেক সুন্দর হয়েছে। আর আপনার সুবাদে দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউল এর কিছু খন্ডচিত্র দেখার সৌভাগ্য হলো।

প্রথমে আপনাকে ধন্যবাদ জানাই এত ব্যস্ততার মাঝে সময় বের করে আমাদের সাথে ছবিগুলো শেয়ার করা। আপনিতো অনেকগুলি দেশ ভ্রমণ করেছেন ,পরবর্তীতে হয়তো অন্য দেশের ছবি আমাদের সঙ্গে শেয়ার করলে আপনার মাধ্যমে জানতে পারবেন। আপনার মন খারাপ কি কারনে সেটা বলতে পারছি না। আশা করছি শীঘ্রই আপনার মন ভালো হয়ে যাবে। দক্ষিণ কোরিয়া দেশ টা দেখতে চাচ্ছি আসলেই সুন্দর ।ছবির মতো সাজানো গোছানো।আপনার ফটোগ্রাফির মাধ্যমে সুন্দরভাবে দেশটাকে ফুটিয়ে তুলেছে। শুভকামনা রইল আপনার জন্য ।

ভ্রমন মানেই আনন্দ তাও যদি হয় বাহিরের দেশ ।তাহোলে আনন্দ উপভোগের সীমা থাকেনা ।উত্তর-পূর্ব এশিয়ার মধ্যে এই দক্ষিন কোরিয়া দেশটি আসোলেও খুব চমৎকার একটি দেশ ভ্রমনের জন্য ।অত্যন্ত ঝাকঝমক পূর্ন পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন সুন্দর পরিবেশে এই দেশ ।দাদা আপনার মাধ্যমে দক্ষিন কোরিয়ার বাস্তচিত্র দেখতে পেলাম ।এখানের উন্নত জীবন ব্যবস্থ্যা জানতে পারলাম ।প্রতিটি আলোকচিত্র খুব সুন্দর ছিলো সুক্ষ্মভাবে ক্যাপচা করে শেয়ার করেছেন দাদা ।আরও যে গুলো দেশে ভ্রমন করেছেন সেগুলো দেখার জন্য আশায় থাকলাম।ধন্যবাদ ও দোয়া রইলো দাদা ।

অসাধারণ শ্রদ্ধেয় দাদা ছবিগুলো খুব দুর্দান্ত হয়েছে। আপনার মাধ্যমে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং বিভিন্ন বিষয়সমূহ দেখা সুযোগ হলো । দক্ষিণ কোরিয়ার ভ্রমণ আপনার খুব ভালো ছিল। এত সুন্দর পোস্ট আমাদের মাঝে শেয়ার করার জন্য আপনার নিকট কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। ভালো থাকবেন দাদা।

আপনার প্রতিটি ছবি অসাধারণ লাগছে। প্রতিটি ছবিই অনেক অর্থ বহন করে। আর আপনি যে ভাবে ছবি গুলো ধারণ করেছেন অসাধারণ। আপনার প্রতিটি বিষয়ে সীমাহীন দক্ষতা যার বনর্না করে শেষ করা যাবে না।

দক্ষিণ কোরিয়া যে এত সুন্দর একটি দেশ তা আগে জানা ছিল না।আমার কাছে খুবই ভালো লেগেছে, আর আপনার ফটোগ্রাফিগুলো তো ছিল দুর্দান্ত। আপনি তো অনেকগুলো দেশ ভ্রমণ করে ফেলেছেন, এখন অপেক্ষায় রইলাম সেখানকার ফটোগ্রাফি গুলো উপভোগ করার।

দাদা,অসাধারণ ও চমৎকার দর্শনীয় স্থান।যা চোখ ধাঁধানো ও দেখার মতো।সিউল নামটি বেশ মজার।এমন স্থানে গেলে মনে হয় মন এমনিতেই ভালো হয়ে যায়।তাছাড়া সুন্দর বিল্ডিং ও তার কারুকার্যগুলি।অপরুপ সাজে সজ্জিত সিউলের রাস্তাটি।অনেক বেশি নীরবতার জায়গা বলে মনে হচ্ছে আমার কাছে।রাস্তা -ঘাটে মানুষ খুবই কম।
তবে এটা সত্যি বাঙালিরা যেখানেই যাবে অর্থাৎ বাইরের দেশে গেলেই সেখানে খাবারের সমস্যা দেখা দেবে।কারণ বাঙালিরা ঝাল,মসলা জাতীয় খাবার বেশি পছন্দ করেন এবং সঙ্গে আবার কড়া পাকের রান্না।যা বাইরের দেশের খাবারের সঙ্গে আকাশ-পাতাল পার্থক্য।বিদেশীরা বোধহয় বেশি আধাপাকের খাবার খেতে পছন্দ করেন, যাতে স্বাদ ,গন্ধ কিছুই পাওয়া যায় না।সুতরাং বাইরের দেশগুলোতে ভ্রমণে অপার শান্তি মিললে ও খেয়ে শান্তি নেই,যদি বাঙালি রেস্টুরেন্ট পাওয়া না যায়।দাদা আপনার ভ্রমণের কাহিনী শোনার অপেক্ষায় রইলাম।শুভকামনা রইলো দাদা।

আপনার আজকের পোস্ট এর মাধ্যমে দক্ষিণ কোরিয়া দেশটি কেমন তার কিছুটা হলেও আন্দাজ করতে পারলাম। ভালোই চাকচিক্যময় এবং সুন্দর একটি দেশ দক্ষিণ কোরিয়া। যদিও আপনি এখনো ভ্রমণ কাহিনী নিয়ে কনটেন্ট লিখেননি। তবে দক্ষিণ কোরিয়ার ভ্রমণকাহিনীর পোস্ট দেখার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় রয়েছি। চাকচিক্যময় দেশ দক্ষিণ কোরিয়ার ফটোগ্রাফি গুলো অনেক সুন্দর ছিল। শত ব্যস্ততার মধ্যেও এত সুন্দর একটি ফটোগ্রাফির পোস্ট আমাদের সঙ্গে শেয়ার করার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ দাদা।

দাদা আপনার প্রতিটা ফটোগ্রাফি সত্যি অসাধারণ ছিল।দক্ষিণ কোরিয়া ভ্রমণের ফটোগ্রাফি গুলো ছিল সত্যি মনমুগ্ধকর। আপনার প্রতিটা ছবি সত্যি অসাধারণ কিন্তু আমার কাছে দ্বিতীয় ছবিটা ভীষণ ভালো লেগেছে। আমি মুগ্ধ হয়ে গেলাম এত সুন্দর ছবি দেখে। এরকম ছবি গুলো আমাদের দেখার বাইরে ছিল। আজকে আপনার তোলা ছবিগুলো দেখে ভীষণ ভালো লাগতেছে।এত সুন্দর কিছু ফটোগ্রাফি আমাদেরকে উপহার দেওয়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ দাদা

বাহ দাদা আপনার তো দেখছি অনেক দেশগ ঘুরার সৌভাগ্য হয়েছে। তবে একদিন বাংলাদেশে আসেন বাংলাদেশে ঘোরার ও অগ্রিম দাওয়াত রইল আপনার। হয়তো এখানকার এত টিপটপ পরিবেশ পাবেন না। কিন্তু এখানকার লোক গুলো বড্ড অতিথি পরায়ন কখনো আসলেই বুঝতে পারবেন। আর কবির ভাষায় যদি বলি তাহলে সবুজে শ্যামলে ভরা আমাদের এই সোনার বাংলা। আর আপনার লেখা পড়লেই বোঝা যাচ্ছে কুরিয়ার পরিবেশ সংস্কৃতিতে কতটা মুগ্ধ হয়েছেন আপনি। ছবিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে যেটি আমার ভালো লেগেছে সে জন্য নামসেন দুর্গের টাওয়ারের ফটোগ্রাফি টি। আপনার জন্য অনেক শুভকামনা ও ভালোবাসা রইলো। 😍🖤

দাদা আপনার ভ্রমন অভিজ্ঞতা না শেয়ার করলেও,ফটোগ্রাফি দেখে বোঝা যাচ্ছে যে, দক্ষিণ কোরিয়া দেশটি অনেক সুন্দর। ওই সময় দক্ষিণ কোরিয়াতে ঘুরতে গিয়ে পারিবারিক ভাবে সুন্দর মূহুর্ত কাটিয়েছেন। তবে আপনার ভ্রমণ অভিজ্ঞতার পোস্টের জন্য অপেক্ষায় রইলাম।এত বিজি সিডিউল এর মধ্যে ও সুন্দর একটি পোস্ট শেয়ার করার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ দাদা।শুভকামনা রইল আপনার জন্য।

দাদা আপনার এই পোষ্টের মাধ্যমে আপনি দক্ষিণ কোরিয়া ভ্রমণ এর দারুন কিছু অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছেন যা খুবই ভালো লাগলো। পৃথিবীতে বিভিন্ন ধরনের মানুষ বসবাস করে। আর তাদের খাদ্যাভ্যাস গুলো আলাদা আলাদা। আমরা বাঙালিরা সব খাবার খেতে অভ্যস্ত নই। তাই বিভিন্ন দেশের খাবার খেতে আমাদের খুবই সমস্যা হয়। হয়তো অন্যান্য দেশে যেগুলো জনপ্রিয় খাবার সেগুলো আমাদের কাছে খুবই বাজে। যাইহোক আপনার ফটোগ্রাফি গুলো অসাধারণ হয়েছে দাদা। হোটেলের জানালা দিয়ে তোলা বাইরের ফটোগ্রাফি আমার খুবই ভালো লেগেছে। এই ফটোগ্রাফি দেখে মনে হচ্ছে একদম পরিপাটি একটি শহর। বিশেষ করে জানালার বাইরের গাছগুলো ফটোগ্রাফিটি আরো বেশি সুন্দর করে তুলেছে। ধন্যবাদ দাদা অনেক সুন্দর কিছু ফটোগ্রাফি আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্য।

দাদা আপনি আপনার ভ্রমণের পাশাপাশি দারুন কিছু ফটোগ্রাফি করেছেন। হয়তো বাহিরের দেশে যাওয়ার সুযোগ আমাদের কখনো হবে না কিন্তু আপনার এই ফটোগ্রাফিগুলো দেখে সেই অচেনা শহরগুলো সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারলাম এটাই অনেক বেশি। নামসেন দুর্গের টাওয়ারের ফটোগ্রাফি আমার খুবই ভালো লেগেছে। দক্ষিণ কোরিয়া অনেক উন্নত একটি রাষ্ট্র। দক্ষিণ কোরিয়ার পথঘাট, শহর সবকিছু একদম সাজানো-গোছানো ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন। ছবিগুলো দেখেই বোঝা যাচ্ছে যেন রং তুলিতে আঁকা কোন স্বপ্নের পৃথিবী। ধন্যবাদ দাদা দারুন কিছু ফটোগ্রাফি আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্য। শুভকামনা রইলো আপনার জন্য।

3jpR3paJ37V8JxyWvtbhvcm5k3roJwHBR4WTALx7XaoRovqcZBoqR8JNHAWiFmThDMsQMQ5GYvYXJe9V33wQVj2Naue6PSZEydg6y2y5YftM2h979pii3cWtL6GHhN5M5ecVU.jpeg
দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউল (Seoul) থেকে তোলা প্রতিটা ফটোগ্রাফ । মোবাইল দিয়ে তোলা তাই রেসল্যুশন কিছু কিছু ক্ষেত্রে খুব একটা ভালো আসেনি

"যা দেখিনি দুই নয়নে,তা পুষিব কেমনে অন্তরে"
আমরা যা দেখিনি, তা নাকি ঘুমের ঘোরেও (স্বপ্ন) দেখতে পাইনা। তবে কল্পনার জগতে কিছু আঁচ করতে পারি। আর কল্পনাও অনেক কিছু আবিষ্কার করাতে পারে।
ছবি গুলো আমার কল্লনাকেও হারতে শেখায়।
যে সহরের রাতও দিনের সাথে তুলনীয়। আপনি না লিখলে এটা প্রশ্নবোধকও হতে পারতনা। দর্শনীয় সব দৃশ্যই। এখন হয়ত কোন দিন ঘুমের ঘোরেও ধরা দিতে পারে। ভালমন্দ বলার তাকৎ আমার নাই। তবে চিত্র ধারনে নিপুণ হাতের ও মেধা স্বত্ব ব্যবহার করা হয়েছে, এতটুকু বুঝার ক্ষমতা আমার রয়েছে। এমন কিছু দর্শনে আমি আপ্লুত।

আমার এক ভাই দক্ষিণ কোরিয়া থাকে প্রায় ৯ বছের হবে। তার সাথে প্রায়ই ফেসবুকে কথা হয়, তার মুখেও একটা কথা শুনেছি ঔ দেশের খাবার অনেক উদ্ভট টাইপের।
দাদা ফটোগ্রাফি গুলো একদম দেখার মতো ছিল। সব গুলো ছবি প্রফেশনাল লেভেলের। যাইহোক দাদা ভ্রমণ কাহিনীর অপেক্ষায় রইলাম। ❤️❤️❤️

দাদা আপনার ফটোগ্রাফি গুলো অনেক মনোমুগ্ধ কর।ফটোগ্রাফির মধ্যে দিয়ে বোঝা যাচ্ছে ,আপনি অনেক সুন্দর করে দিনটি কাটিয়েছেন।ফটোগ্রাফি সাথে শহরটি দেখতে অনেক চমৎকার লাগছে।আমার ভেবে অবাক লাগছে যে আপনি এতে গুলো দেশে শ্রীলংকা, নেপাল, ভুটান, চীন, ভিয়েতনাম, হং কং, কোরিয়া, মালয়েশিয়া, জাপান, জার্মানি প্রভৃতি ভ্রমন করছেন।আমি ঈশ্বর কাছে প্রার্থনা করি পৃথিবীর যে কয়টি দেশ আছে,সেগুলোতে আপনি পারি দেন।অনেক ধন্যবাদ দাদা।

অনেক পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন শহর। অনেক সুন্দর ভাবে ছবি গুলি ক্যামেরা বন্দি করা হয়েছে।দাদা ছবিগুলি সত্যি মনোমুগ্ধকর। আমাদের সাথে দক্ষিণ কোরিয়ার চমৎকার কিছু অফিস , টাওয়ার , পার্ক,রাতের শহরের রাস্তার শহর , দুর্দান্ত । এক কথায় অসাধারণ। শুভেচ্ছা রইলো দাদা

  • ডিটেইলে ভ্রমণ কাহিনী শুনবার প্রত্যাশায় রইলাম দাদা। ☺️☺️কোরিয়া দেশটিতে আমি আজও কখনো যাইনি কিন্তু এত সুন্দর দেশ এবং এত সুন্দর তাদের সংস্কৃতি পোস্টটি পড়ে আমি পুরো মুগ্ধ হয়ে গেলাম। যদি ভবিষ্যতে সামর্থ্য হয় অবশ্যই আমি দেশটিতে একবার ভ্রমণ করতে চাইবো, দাদা অনেক পরিশ্রম করেন দাদার মনটা খারাপ এর কথা শুনে আমারও মনটা খারাপ হয়ে গেল, 😒দাদা মন ভালো করার জন্য ফানি ভিডিও দেখতে পারেন। আজকের পোস্টটি পড়ে এবং দৃশ্য গুলো দেখে অনেক মজা পেলাম। আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ দাদা।

3jpR3paJ37V8JxyWvtbhvcm5k3roJwHBR4WTALx7XaoRovTNqmGtACuheBUbDtqRHv9X2QcNskFdDKG6LTvqw6QtEPzU2MUU2x3FSzwPB2PzZJTiwfS2uqYAGSHU2R7Vcq4B8.jpeg

হোটেলের জানালা দিয়ে বাইরের দৃশ্য অবলোকন।

দাদা আপনি দক্ষিণ কোরিয়া ভ্রমন করেছেন শুনে অনেক ভালো লাগলো। ফটোগ্রাফি গুলো দেখেই বোঝা যাচ্ছে আপনি অনেক সুন্দর মুহূর্ত কাটিয়েছেন। আর আমার এই ছবিটি অনেক পছন্দ হয়েছে। দাদা আপনি দেখি এ পর্যন্ত অনেক দেশ ভ্রমন করেছেন শুনে অনেক ভালো লাগলো। আগামীদিন গুলোও যেনো আপনার পছন্দের দেশ গুলো ভ্রমণ করতে পারেন। আপনার শুভ কামনা রইলো

দাদা আপনার এই ফটোগ্রাফি গুলো আমার কাছে কতটা ভালো লাগছে তা বলে বুঝাতে পারবোনা,একদম স্বপ্নের দেশ ,আমি সবসময় বাহিরের দেশের ফটোগ্রাফির প্রতি বেশি আকর্ষণ দেই ,আমার কাছে কেন যেন অনেক বেশি ভালো লাগে , তবে নিজের দেশের প্রকৃতির দৃশ্য যে খারাপ লাগে তা নই ,কিন্তু বাহিরের জায়গা সবসময় টিভি বা কোনো সোশ্যাল মিডিয়াতে দেখি , এটা এভাবে ফোটোগ্রাফিতে দেখতে পেয়ে অনেক বেশি ভালো লাগে। অনেক অনেক দাদা। অসাধারণ ফটোগ্রাফি গুলো আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্যে।

সবগুলো ফটোগ্রাফিই খুব সুন্দর হয়েছে দাদা। আপনি সত্যিই অনেক ভাগ্যবান, কত দেশ ঘোরাঘুরি করতে পেরেছেন। দক্ষিণ কোরিয়ার এই ছবিগুলো দেখতে খুব সুন্দর দেখাচ্ছে দাদা। আমরা তো যেতে পারবো না,কিন্তু আপনার ছবিগুলো দেখে মনে মনে একবার করে ঘুরে আসলাম😁ধন্যবাদ দাদা,ছবিগুলো শেয়ার করার জন্য। অন্যান্য দেশের ছবিগুলো দেখার অপেক্ষায় থাকবো।

আসলে ভ্রমণ মানেই আনন্দ।আবার এইটা যদি হয় বাহিরের কোন দেশে,তাহলেত কোন কথাই নাই।দাদা আপনি যে ছবি গুলো তুলেছেন ভ্রমণ এর সময় টা সত্যিয়ে ছিল অসাধারণ।আমার অনেক ইচ্ছা বিভিন্ন দেশ ভ্রমণ করব।আশা করি আমার ও ইচ্ছা একদিন পুরন হবে।আর আপনের ভ্রমণ এর অভিজ্ঞতা আমাদের মাঝে শেয়ার করার জন্য অনেক ধন্নবাদ।এবং আপনার ফটোগ্রাফি ছিল অনেক সুন্দর।

দাদা শুরুতেই আপনাকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই এই জন্য যে, অল্প সময়ের জন্য হলেও আপনি আমাদের মাঝে, আপনার ব্যক্তিগত
অ্যালবাম থেকে কিছু চমৎকার ফটোগ্রাফি গুলো শেয়ার করছেনজন্য।
আমরা সকলেই জানি আপনি খুব ব্যস্ত সময় পার করছেন এই মুহূর্তে।

দক্ষিণ কোরিয়া ভ্রমণের প্রত্যেকটি ছবি অসাধারণ হয়েছে যা দেখে আমি অভিভূত আমি মুগ্ধ।সত্যিই বেশ পরিপাটি পরিচ্ছন্ন ও সুন্দর শহর মনে হলো ছবিগুলো দেখে।

Hope you are safe and healthy! Welcome to korea!

Uaaaal, que incrível. 👏🏻

Hi @rme,
my name is @ilnegro and I voted your post using steem-fanbase.com.

Please consider to approve our witness 👇

Come and visit Italy Community

This post has been upvoted by @italygame witness curation trail


If you like our work and want to support us, please consider to approve our witness




CLICK HERE 👇

Come and visit Italy Community



Wow nice, always stay safe for traveling

কোরিয়ান পুরুষরা সেনাবাহিনীতে যোগদান করতে বাধ্য.
দুই বছরের জন্য...
কারণ উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে যুদ্ধবিরতি চলছে।(70 বছর ধরে রক্ষণাবেক্ষণ করা হয়েছে)
সেই সময়ের পরে খুশি
খুব কম অপরাধ আছে।
রাতে ঘুরে বেড়ানো নিরাপদ।.

কোরিয়া সম্পর্কে আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে, আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। আমি কিছু খুঁজে পাব. armanio@naver.com