আমার বাংলা ব্লগ। লুকোচুরি-ছাদ বাগান দেখা। ১০% পে-আউট লাজুক খ্যাক এর জন্য।

2개월 전
ষ্টিমেট, আমার বাংলা ব্লগ এর সকল সহযোদ্ধা এবং বন্ধুদের জানাই আসসালামু আলাইকুম। আশাকরি সকলে ভালো আছেন। আমিও আল্লাহর রহমতে ভালো আছি। আমি আজকে আপনাদের সাথে শেয়ার করব আমাদের বাসার ছাদ বাগান সম্পর্কে লুকোচুরি করে ছাদ বাগান দেখার মজাটাই আলাদা।

দেরি না করে চলুন যাওয়া যাক আজকের মুল পর্বে।

মনের ভেতর লুকিয়ে থাকা কিছু কথা।

আমার শৈশব কেটেছিল গ্রামে। আমার শৈশবে আমাদের ছোট্ট একটা ফুলের বাগান ছিল। আমাদের উঠোনের সামনে, সেখানে বিভিন্ন ধরনের ফুল হতো, গোলাপ,টগর, পাতাবাহার, নটার ফুল, রজনীগন্ধা, কর্কট ফুল, ইত্যাদি। প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে ফুল গাছে পানি দিতাম ফুলের বাগানের পরিচর্যা করতাম।

লুকোচুরি করে ছাদ বাগান দেখা।

IMG_20211108_094909_378.jpg

আমি ছাদে উঠে একটা সেলফি নিলাম।

উচ্চ মাধ্যমিক শেষ না হতেই শহরমুখী হয়ে পড়লাম। দারিদ্রতা টানা পড়োনে পড়ালেখা তেমন একটা হয় নি। না হওয়ার মতই যে পড়ালেখা চাকরি করার মত যোগ্যতা অর্জন হয় না সে পড়ালেখা কে আমি পড়ালেখা মনে করিও না। যাই হোক জীবনের ব্যস্ততায় শুরু হয়ে গেল কর্ম জীবনে এসে পড়লাম। কিন্তু সবচেয়ে আশ্চর্য লাগে একটি বিষয়।

শহরে যে মানুষগুলো বসবাস করে তারাই শুধু মানুষ। গ্রাম থেকে যে মানুষগুলো আসে ভাষা বড়া থাকে তাদের কাছে মানুষ মনে হয় না। বিশেষ করে যারা বৃত্তবান প্রভাবশালী বাড়িওয়ালা তারা গ্রামের মানুষকে মানুষ বলে মনে হয় না। বাসা ভাড়া নিতে গেলে নানান ধরনের সর্ত এরপর তাদের অহংকার আভিজাত্য তো আছেই। ছাদে উঠা যাবেনা, দশটার পর বাসায় ঢোকা যাবে না, বিভিন্ন ধরনের কলা-কৌশল এক ধরনের জেলখানার মতো।

বর্তমানে আমি যে বাসায় ভাড়া থাকে ওই বাসায় সুযোগ সুবিধা অনেক ভালো। পারিবেশ খুব সুন্দর, সিকিউরিটি আঙ্কেল গুলো অনেক ভাল, দুইজন সিকিউরিটি আঙ্কেল আছে। বাড়িওয়ালা অনেক ভালো কোন বেড রেকর্ড নাই। যেমন কোন ভাড়াটিয়ার সাথে কথা বলে না। এবং কি বাড়ি বাড়ার জন্য ভাষাতেও বাড়ি ওয়ালার ফ্যামিলীর কেউ যায়না। গ্যাস কারেন্ট পানি কোন সমস্যা নেই।

বাড়ীওয়ালার তিন মেয়ে, ছেলে নেই। অহংকারী ও বলা যেতে পারে। কারণ যে মানুষগুলো তার বাড়িতে ২০/২৫ টা পরিবার থাকে এবং কি কারো সাথে কথা বলে না, এবং কেউ ছাদে উঠতে দেয় না, ছাদে তালা মেরে রাখে, আমি মনে করি এর চাইতে বড় হংকারি আর কেউ হতে পারে না। তাদের টাকাপয়সা আভিজাত্য কেউ দেখতেও যায় না, কেউ খেতে চায় না, তার পরেও মানুষের সাথে সুসম্পর্ক রাখা উচিত ছিল আমি মনে করি।

যাইহোক, সাড়ে নয়টা নাগাদ বাসায় নাস্তা খাওয়ার জন্য গিয়েছিলাম। সিড়িতে উঠতেই দেখি সিকিউরিটি চাচা ছাদে যাচ্ছে, আমিও পিছন পিছন গেলাম। যাওয়ার পরে ছাদে এত সুন্দর বাগান দেখে নিজেই অবাক হয়ে গেলাম। হয়তো বাচ্চা-কাচ্চারা ছাদের ফুল গাছ নষ্ট করে ফেলবে এ কারণে ছাদে উঠতে দেয় না। পুরো ছাদ জুড়ে ফুল আর ফুল, মনে হয় ফুল গাছের সমাহার। যদিও আমরা ভাড়াটিয়া, তবু আমাদের সাদ জাগে একটু প্রেশনেছের সেজন্য ছাদে উঠতে মন চায়। কিন্তু আমরা ওটা থেকে বঞ্চিত।

আর কথা না বাড়িয়ে চলুন দেখে নেই কিছু ফুল এবং ফুলের গাছ।

ফটোগ্রাফি - ১

IMG_20211108_094728_641.jpg

পাতাবাহার ফুল গাছ। ফুল গাছটি দেখতে খুব সুন্দর লাগে। এবং চিকন চিকন ডালের মধ্যে ফুল হয়। ফুল গাছটি কমবেশি সবাই চিনেন।

ফটোগ্রাফি - ২

IMG_20211108_094757_001.jpg

এটা হচ্ছে পুনর্ণবা ফুল গাছ। এই গাছটিকে কে কি নামে জানে আমি তা জানিনা। ছোটবেলা থেকে আমি এটাকে পুনর্ণবা ফুল গাছ নামেই চিনি।

ফটোগ্রাফি - ৩

IMG_20211108_094824_841.jpg

এটাও এক ধরনের পাতাবাহার ফুল গাছ। এইট ফুল গাছের পাতাগুলো চিকন লাল-সবুজের আবরণের হয়।

ফটোগ্রাফি - ৪

IMG_20211108_094813_147.jpg

এটা গাছটা দেখতে খুবই সুন্দর লাগে এটাও এক ধরনের পাতাবাহার গাছ।

ফটোগ্রাফি - ৫

IMG_20211108_094807_038.jpg

এখানে তুলনামূলক পাতাবাহারের সংখ্যাই বেশি। পুরো ছাদ জুড়ে বিভিন্ন জাতের পাতাবাহার।

ফটোগ্রাফি - ৬

IMG_20211108_094821_645.jpg

এটা কমন একটি ফুলের গাছ সবার প্রিয় গোলাপ ফুল।

ফটোগ্রাফি - ৭

IMG_20211108_094836_758.jpg

ফুল গাছটি আমি নাম জানিনা, অনেকটা ডাটার শাক গাছের মতো দেখতে। গাছ এবং গাছের পাতা একেবারেই সবুজ। ফুল গুলো ধবধবে সাদা, আকারে কিছুটা বড়।

আপনাদের সাথে আমার মনের কিছু কথা শেয়ার করলাম। এবং কিছু ফুল এবং কি গাছের ফটোগ্রাফি শেয়ার করলাম। আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে। সাপোর্ট দিয়ে সাথে থাকবেন ভালো-মন্দ অবশ্যই কমেন্টে জানাবেন। আজকের মত বিদায় নিচ্ছি, সবাই ভাল থাকুন সুস্থ থাকুন এই কামনাই করি।
আল্লাহ হাফেজ।

Authors get paid when people like you upvote their post.
If you enjoyed what you read here, create your account today and start earning FREE STEEM!
STEEMKR.COM IS SPONSORED BY
ADVERTISEMENT
Sort Order:  trending

শহরে যে মানুষগুলো বসবাস করে তারাই শুধু মানুষ

গ্রাম থেকে যে মানুষগুলো আসে ভাষা বড়া থাকে তাদের কাছে মানুষ মনে হয় না। বিশেষ করে যারা বৃত্তবান প্রভাবশালী বাড়িওয়ালা তারা গ্রামের মানুষকে মানুষ বলে মনে হয় না। বাসা ভাড়া নিতে গেলে নানান ধরনের সর্ত এরপর তাদের অহংকার আভিজাত্য তো আছেই। ছাদে উঠা যাবেনা, দশটার পর বাসায় ঢোকা যাবে না, বিভিন্ন ধরনের কলা-কৌশল এক ধরনের জেলখানার মতো।

হ্যাঁ ভাইয়া এটাই বাস্তবতা। শহরের মানুষ ও গ্রামের মানুষকে মানুষ বলে গণ্য করে না। এটাই বাস্তব। পাতাবাহার ফুলটা খুব সুন্দর ভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন আমার খুবই ভালো লাগে। এই ফুলটি দেখতে চমৎকার।গোলাপ ফুল আরো বাগানের অনেক ফুল আমাদের মাঝে তুলে ধরেছেন। খুবই ভালো লাগলো ভাইয়া

·

আপনার গঠনমূলক মন্তব্য আমি মুগ্ধ হয়েছি। আপনার জন্য ভালোবাসা অবিরাম ভাইয়া।

শহরের মানুষ যে গ্রামের মানুষকে মানুষ বলে মনে করে না আপনার এই কথাটির সঙ্গে একমত হতে পারলাম না। সব জায়গাতেই ভালো খারাপ মানুষ থাকে। আপনার কাছে হয়তো তাই হয়েছে খারাপ মানুষের সামনে পড়েছিলেন। আর আপনার ছাদের গাছ গুলো ছবি দেখে যা বুঝতে পারলাম, বাড়িওয়ালির মেয়েগুলো খুব শখ করে মনে হয় ছাদ বাগান করেছে যাতে কেউ নষ্ট করে না ফেলে সেই জন্য হয়তো তালা দিয়ে রাখে।
যাইহোক আপনার ছাদের বাগানের ছবি গুলো আমার কাছে খুব ভালো লেগেছে। শুভকামনা রইল ভাইয়া আপনার জন্য।

·

শুধু আমার নিজের কথা বলে নি আপু। পুরো শহর জুড়ে ম্যাক্সিমাম বাড়িওয়ালার স্বভাব একই রকম। কিন্তু সবাইকে তো আর উল্লেখ করেনি। ভালো মন্দ সব জায়গায় আছে ভালো না থাকলে হয়তো পৃথীবির থাকত না।

আপনার সুন্দর এবং গঠনমূলক মন্তব্যের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। আপনার কমেন্টে আমি আর একটা জিনিস বুঝতে পারলাম যেটা হচ্ছে আপনি আপনার অনুভূতিটা প্রকাশ করেছে তার জন্য আবারো ধন্যবাদ আপু।

·
·

তা অবশ্য সঠিক অনেক বাড়িওয়ালা আছে তাদের ব্যবহার খুব খারাপ। এরকম হলে বাসা পাল্টে ফেলা আমার মতে যুক্তিযুক্ত।

ভাইয়া মানুষ তো মানুষেই এর মধ্যে কোন ভেদাভেদ নেই। শুধু পার্থক্য আভিজাত্যের। অনেক সুন্দর একটা বাসায় আপনি চলমান অবস্থায় আছেন। এটা শুনে অনেক ভালো লাগলো। আর দেখতেছি বাড়িওয়ালা ছাদের উপরে অনেক ফুল ও ফলের গাছ লাগিয়েছেন। ধন্যবাদ ভাইয়া আপনার সুন্দর পোস্ট টি আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্য।

·

আপনার সুন্দর এবং গঠনমূলক মন্তব্যের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।

এই কংক্রিটের শহরে এখন একটু সবুজতা পাওয়াই মুশকিল সেখানে আপনি একটি পুরো বাগান তৈরি করে ফেলেছেন। আপনার এই কাজটা আমি স্বাগত জানাই। আপনি প্রতি টি ছবি অনেক সুন্দর হয়েছে।

·

ভাইয়া আপনি অনেক সুন্দর করে উৎসাহমূলক কমেন্ট করেছেন। এবং আমি খুবই আনন্দিত আপনার জন্য শুভেচ্ছা রইল।

তবে না পড়ে কমেন্ট টা না করলেই ভালো হয় আগে পড়ে বুঝে তারপর কমেন্ট করুন। এটা আপনার ভবিষ্যতের জন্য ভালো হবে। আমার কথাটা নেগেটিভ ভাবে না নিয়ে প্রজেটিব ভাবে নেবেন ধন্যবাদ।

সত্যিই গ্রামের জীবনটা অনেক সুন্দর। গ্রামে বসবাস করার অন্যরকম একটা তৃপ্তি আছে যা শহরে পাওয়া যায় না। গ্রামের মানুষের থেকে শহরের মানুষগুলো সত্যি অনেক জটিল হয়।
তবে আপনার ছাদের ফুলের গাছ গুলো দেখে শহরের মাঝেও গ্রামের একটি আভাস পাওয়া যায়। কোন শহরের মানুষ যদি হুট করে আপনার ছাদে চলে যায় তাহলে ক্ষণিকের জন্য এসে ভুলে যাবে যে সে শহরে আছে। ছাদের উপরে যেন প্রকৃতি ভর করে বসে আছে। ফুলের গাছ গুলো অনেক সুন্দর দেখাচ্ছিল আর আপনি ছবির মধ্যে তা অনেক সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন। আপনার জন্য শুভকামনা ভবিষ্যতে আরো সুন্দর সুন্দর এমন প্রকৃতির ছবি উপহার দিবেন আমাদের মাঝে। ধন্যবাদ আপনাকে, আপনার জন্য শুভকামনা রইল।

·

হ্যাঁ ভাইয়া ঠিকই বলেছেন গ্রামের মানুষগুলো সত্যিই খুবই সহজ সরল হয়। আপনার এত সুন্দর গঠনমূলক মন্তব্য আমি মুগ্ধ হয়েছি। আমি খুবই আনন্দিত আপনার কথাগুলো শুনে। আপনার জন্য শুভকামনা রইল ভাই।

আপনার প্রতিটি কথায় বাস্তবতার চিত্র উঠে এসেছে, আসলে এই ইট পাথর আর কঙ্ক্রিটের শহরে নিজের মতো করে নেয়া স্বভাবের মানুষ এর বড়ই অভাব,যা গ্রামে খুবই সাধারণ। আর বিশেষ করে আপনার ফুলের ফটোগ্রাফিগুলো দারুন ছিলো ভাই। যদিও অনেক গাছের নাম জানতাম না, আজকে জানতে পারলাম আপনার পোষ্ট এর মাধ্যমে। এভাবেই আমাদের সাথে এমন ঘটনা অনুভূতি শেয়ার করবেন ভবিষ্যতেও আশা রাখি। অনেক অনেক শুভ কামনা রইলো ভাই।

·

আপনার গঠনমূলক মন্তব্য অনুপ্রাণিত হয়েছি। হ্যাঁ আপনি ঠিকই বলেছেন শহরের মানুষদের সাথে খাপ খাইয়ে চলতে গেলে অনেক কষ্ট হয়। শুভকামনা রইল আপনার জন্য।