বাঙালি রেসিপি " চুষি চালের পায়েস"

15일 전

বন্ধুরা
আপনারা সবাই কেমন আছেন ? আশা করি, আপনারা সবাই ভালো আছেন। আজকের সকালটা মিষ্টি দিয়ে শুরু করা যাক।তাই আজ আপনাদের সাথে শেয়ার করবো "চুষি চালের পায়েস"। এটি অনেক মজাদার একটি খাবার। এই চুষি চাল আমি অনেক আগে পৌষ পার্বণ মেলা থেকে কিনেছিলাম । আমার দেবর চালের পায়েস পছন্দ করেন না তাই ওর জন্য বেশি করে কিনে রেখেছিলাম। আমি মাঝে মধ্যে রান্না করি। আর পায়েস আমার খুব পছন্দের একটি খাবার। আর আমি মিষ্টি জাতীয় খাবার বেশি পছন্দ করি। আমি ঝাল খেতে পারি না। তাই যখন খেতে ইচ্ছা করে তখনই পায়েস রান্না করি। আর পায়েস বিভিন্ন অনুষ্ঠানের সময় তৈরি করা হয়। এটি একটি জনপ্রিয় খাবার। পায়েস পছন্দ করে না এমন লোক খুঁজে পাওয়া যাবে না। তাহলে চলুন আমরা মূল পর্বে ফিরে যাই।

IMG_20211014_174703.jpg
উপকরণঃ
১. চুষি চাল - ২ কাপ
২. চিনি - ২কাপ
৩. তরল দুধ - ১ লিটার
৪. কাজু বাদাম - ১ চামচ
৫. কিশমিশ - ১ চামচ

IMG_20211014_172050.jpg
চুষি চাল

IMG_20211014_173638.jpg
চিনি

IMG_20211014_173602.jpg
কাজু বাদাম ও কিশমিশ

IMG_20211014_171038.jpg

দুধ
প্রস্তুত প্রণালী:
১. প্রথমে এই চুষি চাল জল দিয়ে ধুয়ে নিতে হবে। এরপর চুলার উপর কড়াই বসিয়ে দিতে হবে। করাইতে এক লিটার দুধ দিয়ে দিতে হবে। চুলার আঁচ বাড়িয়ে দিয়ে দুধ ভালো করে জ্বাল দিয়ে নিতে হবে।

IMG_20211014_172326.jpg
২দুধ ১৫ মিনিট জ্বাল দেওয়ার পর চুষি চাল গুলো দিয়ে অনবরত নাড়তে থাকতে হবে। যাতে কড়াইর নিচে যেনো না লেগে যায়। চাল সেদ্ধ হয়ে এলে হাপ্ কাপের মতো কনডেন্স মিল্ক দিয়ে দিতে হবে এবং সাথে ২ কাপের মতো চিনি দিয়ে দিতে হবে। সেই সাথে এক চামচ কাজু বাদাম ও অল্প কিছু কিশমিশ দিতে হবে।

IMG_20211014_173825.jpg
৩. এবার পায়েস ভালো করে নাড়তে থাকতে হবে। যখন দেখবেন পায়েস হালকা গাঢ় হয়ে হয়ে গেছে সেই পর্যায়ে একটা পাত্রে নামিয়ে নিতে হবে। পায়েস নামানোর পর উপরে কিছু কিসমিস ছড়িয়ে দিতে হবে।

IMG_20211014_173830.jpg

IMG_20211014_174521.jpg
তৈরি হয়ে গেল সুস্বাদু ও মজাদার " চুষি চালের পায়েস"। চাইলে আপনারা ও বাড়ীতে তৈরি করতে পারবেন।

Authors get paid when people like you upvote their post.
If you enjoyed what you read here, create your account today and start earning FREE STEEM!
STEEMKR.COM IS SPONSORED BY
ADVERTISEMENT
Sort Order:  trending

বউদি আমার কাছে একেবারেই নতুন এই রেসিপিটি ।চুষি চাল দেখছি কখন ও খাওয়া হয়নি। তবে আপনার পায়েসটি ইউনিক হয়েছে একেবারে ।দেখতে এতো লোভনীয় মনে হচ্ছে দাওয়াত নিয়ে নেই বউদি।আমি অবশ্যই চুষি চাল খুজে আপনার মতো বানাবো বউদি ।ধন্যবাদ বউদি এতো সুন্দর রেসিপি শেয়ার করার জন্য ।

আমার খুব পছন্দ পায়েস । পায়েসের পিক গুলো দেখে ইচ্ছে করছে একটু যদি খেতে পারতাম । খুবই সুন্দর উপস্থাপনা ছিল । নিজে নিজে রান্নার চেষ্টা করব একদিন ।

বৌদি।
যে সকল উপকরণ গুলো ব্যবহার করেছেন তার সবগুলোই আমি চিনি। কিন্তু কি যেন একটা চাল ব্যবহার করেছেন এটি সম্পর্কে আমি সত্যিই জানি না।

চুষি চাল

আজকে এই চাল এর নাম প্রথম শুনলাম। তবে আপনি যেভাবে পায়েস তৈরি করেছেন দেখে লোভ লেগে গেলো।

তবে উপকরণ সংগ্রহ করা হবে এটি তৈরি করতে ব্যর্থ।

সুন্দর হয়েছে উপস্থাপনা সহ পুরো বিষয়টি

দিদি পায়েস রেসিপি দেখে আমার খুব খেতে ইচ্ছে করছে। দিদি,আপনার পায়েস রেসিপি লোভনীয় এবং সুস্বাদু লাগছে। চুষি চালের পায়েস সচরাচর তেমন খাওয়া হয় না।তবে অনেক আগে আমার মায়ের হাতে রান্না করা খেয়েছিলাম খেতে অনেক সুস্বাদু হয়। কিন্তু মা এভাবে রান্না করে না একটু অন্যরকম ভাবে রান্না করে। কিন্তু দিদি,আপনার রান্না করার রেসিপি গুলো আলাদা হয় একদম ইউনিক। দিদি, আপনি চুষি চালের পায়েস এত রকম জিনিস দিয়ে রান্না করেছেন দেখে আমার খেতে ইচ্ছে করছে। দিদি,একটু যদি খেতে পারতাম আপনার হাতের চালের পায়েস😔
ধন্যবাদ দিদি, এতো সুস্বাদু রেসিপি আমাদের মাঝে শেয়ার করেছেন।

পায়েশ মানেই দুধের ঘনত্বে ভরপুর মিষ্টান্ন। খুব ভালো লাগে পায়েশ খেতে। দিদি, যেটা চুষি চাল হিসেবে আপনাদের পরিচিত আমাদের এখানে এটি চুটকি পিঠা হিসেবে পরিচিত। এটি রান্না করলে অনেক মজা হয়। আপনার রান্না সত্যিই অসাধারণ। পায়েশ দেখেই খাওয়ার লোভ লাগতেছে। যদিও একটু আগে আমি দুধ- সাবুদানা রান্না করে খেলাম। পায়েশ দেখে খুব ভালো লেগেছে।

বৌদি আপনার পায়েস দেখে তো জিভে জল আটকানো যাচ্ছে না। আপনি এতো সুন্দর করে পায়েস রান্না করেছেন যে না খাবে তার ও জিভে জল পড়বে। আপনি জাল পছন্দ করেন না মিষ্টি পছন্দ করেন তাই আপনি অনেক সুন্দর করে চুষি চাউল দিয়ে পায়েস রান্না করেছেন‌ এবং কি পায়েস এর উপকরণ গুলো খুব সুন্দর ছিল। যেখানে ছিল কিসমিস এবং কাজুবাদাম। কিসমিস এবং কাজুবাদাম আমার প্রিয় খাবারের মধ্যে একটি। আমি প্রতিদিন সকাল বেলায় এগুলো খেতে পছন্দ করি। আপনার চুষি চাউল আমাদের গ্রাম্য ভাষায় গুলোকে চুটকি পিঠা বলে এগুলো হাতে বানায় আর আপনি যেগুলো বাজার থেকে সংগ্রহ করেছেন ওগুলো বেশি প্রযুক্তিগত মেশিনে বানায় আমার যতটুকু ধারনা। সকাল সকাল আমাদেরকে এত সুন্দর একটা মিষ্টি পায়েস এর উপহার দেওয়ার জন্য আন্তরিকভাবে শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। এবং ভালোবাসা অবিরাম রইল বৌদি।

চুষি চালের পায়েস দেখে মনে হচ্ছে এখনই পায়েস রান্না করি। সত্যি বৌদি আপনি প্রতিনিয়ত এরকম দারুন দারুন রেসিপি আমাদের সাথে শেয়ার করেন আমি মুগ্ধ হয়ে যাই। এর সাথে আপনি দারুণভাবে প্রতিটি ধাপ উপস্থাপন করেন যা আমার অনেক ভালো লাগে। পায়েস আমি খুবই পছন্দ করি। আমি মাঝে মাঝেই বাসায় পায়েস তৈরি করি। তবে আপনার মত করে এত সুন্দর গুছিয়ে পায়েস তৈরি করতে পারিনা। দারুন হয়েছে আপনার পায়েস রেসিপি। শুভকামনা রইল আপনার জন্য।

প্রথমে তো চুষি চালের পায়েস নামটা শুনে আমি অনেকটা অবাক হয়ে গিয়েছি। চুষি নামে এরকম কোন চাল আছে তা আমি জানতাম না। কিন্তু পরবর্তীতে চালগুলো দেখে চিনতে পেরেছি।

আসলে আমি যদি ভুল না করি তাহলে চুষি এটি চাল না বরং এটিকে সেমাই বা পিঠা বলা চলে। এগুলো চালের গুড়া দিয়ে বানানো হয়। আমাদের এদিকে এই পিঠাটির নাম হচ্ছে চুটকি । তবে এই পিঠাগুলোর পায়েস অসম্ভব মজা। আমি অনেকবার খেয়েছি এগুলো।

আর আপনার পায়েস গুলো দেখেতে খুব লোভনীয় লাগছে। ঘন করে বাদাম, কিসমিস দিয়ে জব্বর বানিয়েছেন বৌদি।

·

আমাদের এখানে চুষি চাল বলে ভাইয়া। ধন্যবাদ ভাইয়া।

পায়েস দেখে মনে হচ্ছে খেতে খুবই সুস্বাদু হয়েছে।আমি বাসায় মাঝে মাঝেই পায়েস খাই।আমার মায়ের হাতে তৈরি করা পায়েস আমার অনেক প্রিয়। বৌদি আপনার তৈরি করা পায়েস দেখে লোভ লেগে গেল। উপস্থাপনা দারুন হয়েছে। আমিও এভাবে পায়েস রান্না করবো।শুভ কামনা রইলো আপনার জন্য।

আমি মিষ্টি খুব একটা খাইনা। মিষ্টি খাই না বলতে দোকানের কেনা মিষ্টিগুলো খেতে খুব একটা ভালো লাগে না আমার। তবে পায়েসটা আমার খুব বেশি পছন্দের। আর আপনার রান্নার প্রতি তো আমার আলাদাই আকর্ষণ থাকে।যা সুন্দর করে রান্না করেন না বৌদি!কি আর বলবো।কখন যে খেতে পারবো কে জানে!!

·

চলে আসুন কোলকাতা আপু আমি নিজে রান্না করে খাওয়াবো আপু। আর আপনি আসলে আমাদের খুব ভালো লাগবে।

বাহ বৌদি আপনি খুবই সুন্দর ভাবে চুসি চাউলের পায়েস রান্না করেছেন দেখে খুবই ভালো লাগছে আসলে পায়েস আমার অনেক প্রিয় আপনার পায়েস রান্নার রেসিপি টা দেখে আমার জিভে জল এসে গেল দেখেই বোঝা যাচ্ছে অনেক সুস্বাদু হয়েছে পায়েস রান্নার প্রতিটা ধাপ আপনি আমাদের মাঝে অনেক সুন্দর ভাবে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত উপস্থাপন করেছেন এত সুন্দর একটি পায়েস রান্নার রেসিপি আমাদের মাঝে শেয়ার করার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ আপনি বরাবরই অনেক সুস্বাদু রেসিপি নিয়ে আমাদের মাঝে উপস্থিত হন এবারও তার ব্যতিক্রম নয় শুভকামনা রইল আপনার জন্য বৌদি

পায়েস আমার খুবই পছন্দের আর আপনি খুবই সুন্দরভাবে এটা উপস্থাপন করেছেন। আর শেষে পায়েসের পরিবেশন দেখে আরো বেশি লোভ লেগে যাচ্ছে মনে হচ্ছে এটা খুবই মজার হবে।

আপু অনেক সুন্দর একটা রেসিপি শেয়ার করেছেন আপনি। আপনার রেসিপির সকল উপাদান ছিলাম কিন্তু আজকের প্রথম চার্টার কথা জানলাম বা শুনলাম। সত্যি আপু বাজারে তেমন বাজার করতে জানিনা তো এই জন্যই হয়তো বা। তাকে অনেক ভালো লেগেছে আপু আপনার রেসিপি। ধন্যবাদ আপু সুন্দর একটা রেসিপি আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্য। শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা রইলো।

আমি মিষ্টি খাবার খুবই কম খাই। কিন্তু পায়েস দেখলে এক চামচ না খেয়ে থাকতে পারিনা । মুখের মধ্যে নিলে তুলার মতো নরম ,মধুর মতো মিষ্টি একটা অনুভূতি হয়। খুবই দারুন লাগে।
পায়েস খাওয়ার সময় আমার আরও একটি জিনিস খুবই দারুন লাগে সেটি হচ্ছে কিসমিস । কিসমিস গুলো খুঁটে খুঁটে আগেই খেয়ে ফেলি।

পায়েস এমনিতে আমার কাছে দারুণ লাগে, প্রায় বাড়ীতে তৈরী করে ফ্রিজে রেখে দেয়া হয়। তারপর খাবার শেষে একটু মিষ্টি মুখ করার চেস্টা করা হয় হি হি হি ।

তবে আপনার রেসিপির মাঝে চুষি চালের বিষয়টি নতুন লেগেছে আমার কাছে এবং এই চালের নামটিও প্রথম শুনলাম। দেখি আমাদের বাজারে গিয়ে এই চালের দেখা পাই কিনা, তবে পেলে স্বাদটা পরখ করে দেখবো। ধন্যবাদ

·

এই চাল আমি প্রথম পৌষ পার্বণ মেলায় দেখে ছিলাম। আর সেই খান থেকে কিনেছিলাম ভাইয়া। এই চাল দিয়ে পায়েস ছাড়া অন্যকিছু রান্না করা যায় না।

·
·

এই জন্যই তো আকর্ষণটা একটু বেশী লাগছে, পায়েসটা খেতে কেমন হয় চেক করে দেখতে হবে তো, হি হি হি।

চুষি চাল দিয়ে বাঙালি সেরা রেসিপি পায়েস রান্না করেছেন। এটি দেখে আমার খেতে খুব ইচ্ছা করছে। আপনার সুন্দর উপস্থাপন অনেক ভাল লেগেছে। আপনার জন্য শুভেচ্ছা রইলো।

দিদি, আপনার চুষি পায়েস এর রেসিপি পড়ে অনেক ভালো লাগলো। আমি ব্যক্তিগতভাবে পায়েস খেতে পছন্দ করি। আপনার পোস্টটি পড়ে বোঝা যাচ্ছে চুষি পায়েস অসাধারণ মজাদার ও সুস্বাদু হয়েছে। দিদি আপনার জন্য অনেক অনেক শুভকামনা রইল।

দিদি আমার এখনি খেয়ে নিতে ইচ্ছা করছে। মনে হচ্ছে খুব ই মজা হয়েছে খেতে। দুধ খুবই ঘন দেখতে লাগছে। ছবিতেই এত সুন্দর লাগছে কি জানি খেতে কেমন লাগবে খেতে, কতটা মজা লাগবে!
অনেক ধন্যবাদ দিদি আপনাকে। নিজে একদিন বাসায় রান্না করে দেখব।

চুষি চালের পায়েস, এই প্রথম নাম শুনলাম, এই চাল আমি আজকেই প্রথম দেখলাম আপু, এতো সুন্দর চাল গুলো, দেখে মনে হচ্ছে না এগুলো চাল, তবে পায়েস কিন্তু সেই মজার, দেখেই বুঝা যাচ্ছে, সাথে এক লিটারের দুধ, আবার ডেনিশ মিল্ক, তবে কেমন হয়েছে সেটা কি আর ভাবা যাই। ইচ্ছে করছে এখনই গিয়ে খেয়ে আসি।

আপনি যদি বলেন আপত্তি করবনা আপু 😁

আপনার পোষ্টটি দেখে আমি মনে মনে ভাবছি চুষি চাল আবার কোনগুলো এগুলো তো কখনো নামও শুনিনি পরে দেখলাম যে এইগুলা ।এগুলোকে চুষি চাল বলে তাই তো জানতাম না ।এগুলোকে সব সময় দেখি লোকজন বিক্রি করছে আমি সবসময় মনে মনে দেখে ভাবি এগুলো কি,কিভাবে খায় জানিও না তাই কখনো কিনিও নাই। আপনার থেকে এগুলো খাওয়ার নিয়মটা শিখে রাখলাম আর বৌদি আপনার পায়েস এর যা কালার হয়েছে অসাধারণ লাগছে। দেখে মনে হচ্ছে খুবই মজা হয়েছে খেতে। ভিতরে এভাবে কনডেন্স মিল্ক দিলে আমার কাছে খুবই ভালো লাগে খেতে ।দারুন হয়েছে বৌদি ।ধন্যবাদ।

বৌদি অনেক ধরনের চালের নাম শুনেছি কিন্তু চুষি চাল এমন নাম কখনো শুনিনি। চাল গুলো দেখতে খুবই সুন্দর লাগছে। পায়েস আমার খুব পছন্দের একটি মিষ্টান্ন। চুষি চালের পায়েস দেখেই বোঝা যাচ্ছে এটি খেতে খুবই সুস্বাদু হয়েছে। শুভকামনা রইল আপনার জন্য বৌদি।

চুষি চাল আমার কাছে এইটার নাম নতুন লাগল। আসলে আপনি একদম নতুন নতুন আইটেম নিয়ে হাজির হলেন। এটা আমার খুবই ভালো লাগে। আপনি বরাবরই ভাল রান্না করে থাকে। পায়েস অনেকদিন আগে খেয়েছি আবারও মনে পড়ে গেল আপনি পায়েস দারুণভাবে রান্না করেছেন। প্রতিটি ধাপ খুব সুন্দর ভাবে উপস্থাপনা করেছেন। অনেক ভাল ছিল বৌদি।|~

এটা আমার দেশে সত্যিই সুস্বাদু দেখায়, এই খাবারটিকে ক্রিম অফ রাইস পুডিং বলা হয় এবং এটি ক্রিসমাসের সময়ে খুব জনপ্রিয়।

·

আমাদের এখানে প্রায়ই সব অনুষ্ঠানে তৈরি করা হয়। এমন কি জন্মদিনে রান্না করা হয়। ধন্যবাদ আপু।

·
·

আমি আমার জন্মদিনে একই বানাতে আশা করি।

আমি এই চালের নাম এই প্রথম শুনলাম ও দেখলাম।নামটি ভীষণ সুন্দর।তবে চাল দেখে বেশি অবাক হয়েছি বৌদি। 😯😯 চালগুলি দেখতে ঠিক ফুটির দানার মতো লাগছিল আমার কাছে আবার কিছুটা লম্বা ধানের মতো।
পায়েস আমার ভীষণ প্রিয় ।খুবই সুন্দর ও চমৎকার হয়েছে আপনার তৈরি করা পায়েসটি।আর কিসমিস খেতে ও সেই মজা লাগে আমার।আপনার রেসিপি মানে সুমিষ্ট হতেই হবে বৌদি।👌👌ধন্যবাদ আপনাকে।

এটা সুস্বাদু দেখাচ্ছে, আমি এটার স্বাদ নিতে চাই

চুষি চালের পায়েস দেখে
জিভে এলো জল
সবাই মিলে পায়েস খাব
জলদি করে চল

পায়েস আমার প্রিয় দিদি
খেতে লাগে মজা
এদেশ থেকে যাচ্ছি কিন্তু
তোমার বাড়ি সোজা♥♥

·

এখনই আছেন আপু আপনার অপেক্ষায় রইলাম। আর আপনার সুন্দর সুন্দর কবিতার জন্য ধন্যবাদ।