A sweet love story !! "একটি মিষ্টি প্রেমের গল্প!!"

작년

index.jpg
img source

Sweet girl, sweet girl, where do you go?
I think of you, what do you want to know?
The sweet smile on your face, I'll tell you.
Lost to see you, where am I?
Quietly see you, dream about you,
I am in love with you, the color of the moon
In your voice, sweet melody,
Love came to my mind.

Didn't get much sleep last night.And if sleep is not good, headaches.New offices, new jobs. Office guns are great.Today is the end of the day with them. But the story will not continue from tomorrow.Sir said.To finish the day-to-day work.The intensity of the sun is gradually decreasing.The sun is setting in the western sky.The red sun may be falling short of the earth.The world will go dark in its own realm. No one can stop him.

Rashed had just arrived from the village.Looking down from the train, he saw an empty taxi.The driver of the taxi approached him to point. Then Rashed climbed the car and came to the destination.The four-story building, named in front of the house, is named after Mama. "Raihan Khandaker" Rashed stood for a minute. He is feeling very tired to travel so far. The point was accumulated in the sweat forehead.The soft gentle sunshine came and fell on that sweat and shined.Rashed pulled out a handkerchief from his pocket and wiped the sweat. New home. He looked around the house and looked around.

Confirming two steps forward, the calling bell tipped. Today Mama is sitting at home reading the newspaper today. I know his nature, Read what is written in the newspaper at the bottom of the newspaper.That afternoon, the newspaper is still reading.Of course it's good.Opening the door from inside came to my ears.

Urmila: And you, how are you? Daddy, who's here? I was reading novels. Despite the reluctance I had to get up. As he came down the stairs from the two storeys, I came to the door and wondered who could come in the moment. It is nice to see you Anybody else was in the news. I was reading a very emotional novel. Income inside. The sound came from inside

Uncle: I know you will come, but I didn't know it would come today. You are so tired, eat something fresh. talk you later. Urmila, take Rasheed to his room.

Urmila is my uncle's daughter. Very sweet girl We used to study together in college. I finished college and went to my village home. Two years went by. I thought I might have changed a lot, but no, Urmila recognized me as soon as she saw me. I am still the last Rashed, as I was before. Over time, human character changes, but human form does not change. The world is changing and changing with humans.

.................................Love...................................

মিষ্টি মেয়ে,মিষ্টি মেয়ে কোথায় তুমি যাও?
তোমার কথা ভাবী আমি, তুমি কি জানতে চাও?
তোমার মুখের মিষ্টি হাসি, দেখবো আমি বলে।
হারিয়ে যাই তোমায় দেখে, আমি কোথায় তখন?
চুপটি করে দেখি তোমায়,স্বপ্ন তোমায় নিয়ে,
তোমার প্রেমে মগ্ন আমি, চাঁদের মত রঙ
তোমার কণ্ঠে, মিষ্টি সুরে,
প্রেম আসিল আমার মনে।

কাল রাতে খুব ভালো ঘুম হইনি। আর ঘুম ভালো না হলে যা হয়, মাথা বাথা। নতুন অফিস, নতুন কর্ম। অফিসের বন্দুরা খুবই ভালো। তাদের সাথে গল্প করে আজকের দিনটা শেষ। কিন্তু কাল থেকে গল্প চলবে না। স্যার বলে দিয়েছে। প্রতিদিনের কাজ প্রতিদিন শেষ করার জন্য। রোদের তীব্রতা আস্তে আস্তে কমে আসছে। সূর্যটা পশ্চিম আকাশে অবস্থান করছে। একটু পড়েই হয়তো লাল সূর্যটা পৃথিবীর মায়া কাটিয়ে পৃথিবীকে অন্ধকার করে চলে যাবে তার নিজস্ব রাজ্যে। কেউ তাকে বাঁধা দিয়ে রাখতে পারবে না।

রাশেদ সবেমাত্র গ্রাম থেকে শহরে আসল। ট্রেন থেকে নেমে এদিক ওদিক তাকিয়ে একটা খালী ট্যাক্সি দেখতে পেল। ট্যাক্সির ড্রাইভারকে হাতে ইশারা করতেই তার দিকে এগিয়ে আসে। তারপর রাশেদ গাড়িতে আরোহন করে গন্তব্য স্থানে আসলো। চার তলা বিল্ডিং, বাড়ির সামনে মামার নাম দেওয়া আছে। "রাইহান খন্দকার" রাশেদ মিনিট খানেক দাঁড়ালো। এতদূরে জার্নি করে আসতে খুবই কান্ত লাগছে তার। বিন্দু বিন্দু ঘাম কপালে জমা হলো। নরম কোমল রোদ এসে সেই ঘামের উপর পড়ে চিক্ চিক্ করছে। রাশেদ পকেট থেকে রুমাল বের করে ঘামটা মুছে নিল। নতুন বাড়ি, চারপাশে চোখ ঘুড়িয়ে বাড়িটি ভালো করে দেখে নিল। নিশ্চিত হয়ে দু-এক কদম এগিয়ে গিয়ে কলিং বেল টিপল। আজ ছুটির দিন মামা বাসায় বসে খবরের কাগজ পড়ছেন হয়তো । তাঁর একটা স্বভাবআমি জানি, খবরের কাগজের আনাচে কানাচে যা কিছু লিখা আছে তা খুঁটিয়ে পড়া। তাইতো বিকেল বেলাও খবরের কাগজ পড়ছে। অবশ্য এটা ভাল। ভিতর থেকে দরজা খোলার সব্দ কানে আসলো।

ঊর্মিলাঃ ও তুমি, কেমন আছো। বাবা দেখো কে এসেছে। আমি উপন্যাসের বই পড়ছিলাম। অনিচ্ছা থাকা সত্ত্বেও আমাকে উঠতে হলো। সে দু’তলা থেকে সিঁড়ি বেয়ে নিচে আসলাম দরজার সামনে এসেই ভাবতে লাগলাম, এ মুহূর্তে কে আসতে পারে। তোকে দেখে খুব ভালো লাগছে। অন্য কেও হলে খবর ছিল। অনেক আবেগময় একটা উপন্যাস পড়ছিলাম। ভিতরে আয়।

ভিতর থেকে আওয়াজ এলো

মামা: আমি জানি তুমি আসবে, কিন্তু আজ আসবে এটা জানতাম না। অনেক ক্লান্ত তুমি, ফ্রেশ হয়ে কিছু খেয়ে নাও। পরে কথা হবে। ঊর্মিলা, রাশেদ কে তার রুমে নিয়ে যাও.

ঊর্মিলা আমার মামার মেয়ে। খুবই মিষ্টি একটা মেয়ে। আমরা কলেজে এক সাথে পড়তাম। কলেজ শেষ করে গ্রামের বাড়িতে চলেগিয়েছিলাম। দেখতে দেখতে দুইটি বছর চলে গেল।
আমি মনে করিছিলাম, আমি হয়তো অনেক বদলে গেছি, কিন্তু না ঊর্মিলা তো আমাকে দেখে সাথে সাথে চিনে পেল্ল। আমি এখনো আগের রাশেদ, আগে যেমন ছিলাম, এখনো তেমন আছি। সময়ের সাথে সাথে মানুষের চরিত্র পরিবর্তন হয়, কিন্তু মানুষের রূপ পরিবর্তন হয় না। মানুষের সাথে সাথে পৃথিবীর চিত্র ও পরিবর্তন হয়।

চলবে........................

Authors get paid when people like you upvote their post.
If you enjoyed what you read here, create your account today and start earning FREE STEEM!
STEEMKR.COM IS SPONSORED BY
ADVERTISEMENT